ঠাকুরগাঁওয়ে ছাত্র ইউনিয়ন নেতা ও সাংবাদিকের উপর সন্ত্রাসী হামলা

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি ঃ ঠাকুরগাঁওয়ে বাংলাদেশ শিক্ষার্থী ঐক্য পরিষদ কেন্দ্রীয় শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক ও ঠাকুরগাঁও ছাত্র ইউনিয়নের যুগ্ন আহবায়ক আর এম রিংকু ও সাংবাদিক জয়মোহন্ত অলকের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে।
মঙ্গলবার (২৯) সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে এগারটার দিকে সাংবাদিক জয় ও আর এম রিংকু সাংগঠনিক কাজ শেষে ঠাকুরগাঁও শহর থেকে কলেজ পাড়ায় আসার পথে টাঙ্গন নদীর ব্রীজের উপর এই ঘটনা ঘটে। এ সময় ৬/৭ জনের একটি সন্ত্রাসী দল মটর সাইকেল যোগে হেলমেট পরিহিত অবস্থায় ব্রীজের উপর এসে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথারী তাদের কোপাতে থাকে। তারা চিৎকার করতে থাকলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। পরে পথচারী এবং এলাকাবাসী এসে উদ্ধার করে আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে।
জেলা ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি আবু বক্কর সিদ্দীক বলেন তারা দুজনেই কাজ শেষে কলেজ পাড়ায় ফিরছিল এমন সময় টাঙ্গন নদীর ব্রীজের উপর সন্ত্রাসীরা তাদেরকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালায়।
বাংলাদেশের কমিউনিষ্ট পার্টি ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা শাখার সভাপতি আহসানুল হক বাবু বলেন সন্ত্রাসীরা এটা পূর্বপরিকল্পিত ভাবে ঘটিয়েছে। তিনি আরো বলেন মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত রোগীদের ৭২ ঘন্টা নিবিড় পরিচর্যায় রাখা হয় কিন্তু ১৩ ঘন্টা যেতে না যেতেই সার্জারী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক শাহরিয়ার শেখ রিফাত সেটা না করে করোনার অজুহাত দেখিয়ে রিলিজ দিয়েছেন। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক, এটা সরকার দলীয় প্রভাবশালী কোন রাজনৈতিক নেতার ইশারায় ঘটেছে বলে মনে করেন।
কর্তব্যরত চিকিৎসক শাহরিয়ার শেখ রিফাত বলেন রোগীদের সার্বিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করে, করোনা পরিস্থিতিতে হাসপাতালে রোগী রাখাও রিকস্ সে চিন্তা ভাবনা করে ৭দিন পরে এসে সেলাই নেয়ার পরামর্শ দিয়ে রিলিজ দেয়া হয়েছে। অপরদিকে আধুনিক সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা: রাকিবুল আলম বলেন রোগীদের ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। সার্জারি বিভাগের চিকিৎসক কেন রিলিজ দিয়েছে বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে পরিস্থিতি বিবেচনা করে রিলিজ স্থগিত করা হয়েছে।
ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি তানভিরুল ইসলাম বলেন ঘটনাটি শুনেছি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *