সাতক্ষীরার শ্যামনগরে ১৫ বছর পরে মায়ের সন্ধান পেল সন্তান

এস,এম,হাবিবুল হাসান :
সাতক্ষীরার শ্যামনগরে বিয়ের দাওয়াত খেতে এসে দীর্ঘ ১৫ বছর পরে মায়ের সন্ধান পেল আল আমিন । সন্ধান পাওয়া সেই মা আবেদা বেগমের (৬৯) ছিল ব্রেনের সমস্যা,কোন কিছু মনে রাখতে পারতেন না। এক ঝড় বৃষ্টির রাতে বাড়ি থেকে বের হয়ে যান আবেদা। এলাকায় মাইকিং, থানায় জিডি, পত্র-পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশসহ বহু স্থানে খুঁজেও মায়ের সন্ধান পাননি আবেদা বেগমের ছেলে-মেয়েরা।

শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে প্রতিবেশীর সাথে এক আত্মীয়ের বিয়েতে সাতক্ষীরার শ্যামনগরের গাবুরা ইউনিয়নের চাদনীমুখা গ্রামে এসেছিলেন আবেদা বেগমের ছেলে বাগেরহাট জেলার মোংলা থানার জিরোধারাবাজি এলাকার ঘরখোল গ্রামের আল আমিন।

বিয়ে বাড়িতে এসে পাশ্ববর্তী বাজারে চা খেতে গিয়ে আল আমিন লোকমুখে শোনেন সেখানে এক পরহেজগার পাগলী থাকে। আল আমিনের হারিয়ে যাওয়া মাও পরহেজগার ছিলেন। তাই কৌতূহল নিয়ে তাকে দেখতে এগিয়ে যান তিনি। সামনাসামনি হলেও প্রথমে ছেলেকে চিনতে পারেননি মা আবেদা বেগম। কিন্তু মাকে চিনতে পারায় আল আমিন তাকে জড়িয়ে ধরেন। বেশ কিছুক্ষণ পর মাও ছেলেকে চিনতে সক্ষম হন এবং চিৎকার দিয়ে কান্নাকাটি শুরু করেন।

আল আমিন জানান, শুক্রবার দুপুরে সে তার প্রতিবেশীর সাথে এক আত্মীয়ের বিয়েতে গাবুবায় আসেন। বিয়েতে এসে স্থানীয় বাজারে গিয়ে তিনি জানতে পারেন গত দুই বছর ধরে বাজারে এক নামাজি পাগলী থাকে। তার ঠিকানা কেউ জানে না। বিষয়টি শুনেই তিনি এগিয়ে গিয়ে গাবুরা ইউনিয়ন পরিষদের পাশের একটি দোকান ঘরের চালের নিচে বসে থাকা অবস্থায় ১৫ বছর আগে হারিয়ে যাওয়া মাকে সনাক্ত করেন।

গাবুরা ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদুল আলম জানান, এক বৃদ্ধ মহিলা বছর দুয়েক আগে এখানে এসে গাবুরা ইউনিয়ন পরিষদের পাশে থাকতো। শুক্রবার বিয়ে বাড়িতে বেড়াতে এসে তার ছেলে তাকে শনাক্ত করেন। তিনিও ছেলেকে চিনতে পারায় তাকে নিজ ঠিকানায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *