তাল পাখায় সংসারের হাল

কাহালু (বগুড়া) প্রতিনধি:

‘তালপাতার পাখা’র গ্রাম হিসেবে পরিচিত বগুড়ার কাহালু উপজেলার যোগীরভবন ও আড়োলা নামক অঞ্চল। এ গ্রামের দেড় শতাধিক পরিবার পাখা তৈরি করে জীবিকা নির্বাহ করে।

এই আড়োলা গ্রামের একজন তাল পাখার কারিগর মোর্কারম আলী। বাহারি তাল পাখা তৈরীর পাশাপাশি গ্রাম-গঞ্জ এবং বিভিন্ন হাট-বাজারে তাল পাখা ফেরি করে বিক্রি করেই সংসার চালান তিনি। গরমের এই সময়টাতে পরিবারের অন্যন্য সদস্যদের নিয়ে তৈরী করেন তালের হাত পাখা।

ফেরি করে প্রতিটি তাল পাখা বিক্রি করেন ৮ থেকে ২০ টাকার। এতে খুব বেশী লাভবান না হলেও তিন বেলা খেয়ে পড়ে চলে তার পরিবারের। কিন্তু করোনা মহামারির কারণে তালপাখার চাহিদা প্রায় নেই বলে খুব দুর্বিসহ জীবণ-যাপন পার করছেন বলে জানান মোর্কারম আলী।

মোর্কারম আলী আরোও জানান, শীতের ৪ মাস ছাড়া বছরের বাকি ৮ মাসই কমবেশি পাখা তৈরী করেন তারা। বাসায় এসে মহাজনরা তাল পাখা তৈরির বায়না দিয়ে যেতেন। ফলে কোন অসুবিধাই হতোনা তাদের। কিন্তু করোনা সহ নানা কারণে বাজারে কমেছে তালের পাখার চাহিদা। পাখার চাহিদা না থাকায় এক প্রকার কর্মহীন হরে পরেছেন বলে জানান তিনি।

কালের বিবর্তনে ও প্রযুক্তি সুবিধাসহ নানাবিধ কারণে হাতপাখার কদর কমে যাওয়ায় কদর হারাচ্ছেন এই কারিগরেরা। তালপাখার চাহিদা কমে যাওয়ায় জীবন-জীবিকার তাগিদে এ শিল্পের সঙ্গে জড়িতরা অন্য পেশার দিকে ঝুঁকে পড়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *