সাতক্ষীরায় পুলিশের অভিযানে জব্দকৃত ৬শ’৫৫ বস্তা গম ঘূর্ণিঝড় উপদ্রুত জনগণের মাঝে বন্টন করে দেয়ার জন্য নির্দেশ আদালতের

এস,এম,হাবিবুল হাসান :
সাতক্ষীরায় পুলিশের অভিযানে জব্দকৃত ৬শ’৫৫ বস্তা গম ঘূর্ণিঝড় উপদ্রুত ৪ টি ইউনিয়নসহ জেলার আম্পান কবলিত জনগণের মাঝে বন্টন করে দেয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন সাতক্ষীরার সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক শেখ মফিজুর রহমান।

রবিবার(৫ জুলা) ভার্চুয়াল শুনানী শেষে সোমবার( ৬ জুলাই) দুপুরে সাতক্ষীরার সিনিয়র স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক সিনিয়র জেলা জজ শেখ মফিজুর রহমান এ আদেশ দেন। এর আগে এ মামলার পিপি (দুদক) জব্দকৃত আলামত পচনশীল হওয়ায় এর মধ্য থেকে ৫ কেজি নমুনা স্বরুপ রেখে বাকী সব আলামত বিধিমোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহনের আদালতে আবেদন করেন। আদালত শুনানি শেষে উক্ত আদেশ দেন।

এ মামলার নথি ও দরখাস্ত (পিপির আবেদন) পর্যালোচনা শেষে আদলতের বিচারক জানতে পারেন যে, গত ২৫.০৬.২০২০ তারিখে সাতক্ষীরা ডিবি পুলিশের এস আই হুসাইন মোস্তফা আলম ৬শ’৫৫ বস্তা গম (৩৯ হাজার ৩শ’ কেজি) জব্দ তালিকা মূলে জব্দ করেন।

পরবর্তীতে কালিগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরি নং ১৬৪৫, তাং- ২৬/৬/২০২০ ধারা ফৌঃকাঃ বিধি ৫৪ মোতাবেক আসামী শহীদুল ইসলাম, আব্দুল গণি, লিয়াকত সরদার এবং আবু খালেক কারিগরদের গ্রেফতার করে আদালতে হাজির করেন এবং দুর্নীতি দমন কশিমন গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে পেনাল কোডের ৪০৯/৪২০/৪৬৮/৪৭১/৪৭৭/(ক)/১০৯ তৎসহ ১৯৪৭ সনের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারা মোতাবেক গত ২৭/৬/২০২০ তারিখে মামলা দায়ের করেন।

বিজ্ঞ পি,পি (দুদক) গত ২৯/৬/২০২০ তারিখে আসামীদের অত্র মামলায় গ্রেফতার দেখানোর আবেদন করিলে ৩০/৬/২০২০ তারিখে ভার্চুয়াল শুনানীঅন্তে মঞ্জুর করা হয় এবং আসামীদের মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে হাজতী পরোনায়া ইস্যু করা হয়।
আলামত যেহেতু পচনশীল দ্রব্য সেহেতু তা নষ্ট না করিয়া জনকল্যানে ব্যবহার করা সমীচিন বলে আবেদনে উল্লেখ করা হয়। বিচারক নথি পর্যালোচনা শেষে সম্প্রতি সুপার সাইক্লোন আম্পান ঘূর্ণিঝড় সাতক্ষীরায় দারুন ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় জবদকৃত আলামতের ব্যবহার/প্রয়োগ সুনিশ্চিত করতে ৫ কেজি নমুনা স্বরুপ রেখে বাকী গুলো আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত দূর্গত এলাকা শ্যামনগর উপজেলার কাশিমাড়ী, কালিগঞ্জের কৃষ্ণনগর , আশাশুনি সদর ও আশাশুনির আনুলিয়া ইউনিয়নের মানুষের মাঝে বন্টনের লক্ষ্যে জেলা পুলিশকে দায়িত্ব দেন।
সাতক্ষীরা জেলা পুলিশ বর্ণিত ৪ টি ইউনিয়নের ক্ষতিগ্রস্ত জনগনের মাঝে বন্টন শেষে আদালতকে একটি বন্টন প্রতিবেদন দাখিল করার জন্যও ওই আদেশে বলা হয়েছে। একই সাথে আদেশের অনুলিপি অবগতি ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য পুলিশ সুপার সাতক্ষীরা, দূর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয়, খুলনা ও বিজ্ঞপিপি দুদক বরাবর প্রেরন করার জন্য বলা হয়।

ভার্চুয়াল শুনানিতে এ সময় অংশ নেন দুদকের পিপি এড. মোস্তফা আসাদুজ্জামান দিলু ও জেল সুপার।
এর আগে ২৮ মে ২০২০ তারিখে ৮শ’১৭ বস্তা জব্দ কৃত গম আম্পান ক্ষতিগ্রস্থ এলাকায় বিতরণের নির্দেশ দেন সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ শেখ মফিজুর রহমান। নির্দেশনা মোতাবেক সাতক্ষীরা জেলা পুলিশ সুষ্ঠভাবে ওই গম ক্ষস্থিগ্রস্থ এলাকার মানুষের মধ্যে বিতরণ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *