করোনা সংকটে ব্র্যাকের ভূমিকা প্রশংসনীয়

মোহাম্মদ রোমান হাওলাদার :
করোনা ভাইরাস (কভিড-১৯) বৈশ্বিক মহামারীতে সরকার ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা মোতাবেক ব্র্যাক সিরাজদিখান তাদের মাইক্রো ফাইন্যান্স কর্মসূচি বন্ধ রেখে উপজেলার জণসাধারণকে সর্তক ও সচেতনতা সহ বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছে। ব্র্যাক সিরাজদিখান শাখার দক্ষ কর্মী বাহিনী দ্বারা করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে শুরুতেই তাদের মাইক্রো ফাইন্যান্স কর্মসূচির কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়ে
জনসাধারণকে করোনা সংক্রান্তে সচেতন করার লক্ষ্যে সচেতন মূলক প্রচারনা, লিফলেট বিতরন, উপজেলার পাড়া ,মহল্লায় মাইকিং করাসহ হাট বাজার ও রাস্তা ঘাটে জীবানু নাশক স্প্রে কার্যক্রম পরিচালনা অব্যাহত রাখে। এছাড়া ব্র্যাক সিরাজদিখান শাখার উদ্যোগে উপজেলার বিভিন্ন হাসপাতাল, ঔষধের ফার্মেসি ও দোকান গুলোতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য বৃত্ত অংকন করে দেওয়া হয়। ব্র্যাকের মাধ্যমে এ উপজেলাসহ মুন্সীগঞ্জ জেলায় প্রায় ১০ হাজার জনকে বিকাশের মাধ্যমে খাদ্য সহায়তার জন্য সঞ্চয় ফেরৎ দেওয়া হয়। এছাড়া মৃত সদস্যর নমীনিকে মাসিক মুনাফার লভাংশ বিকাশের মাধ্যমে প্রদান করে ব্র্যাক। ব্র্যাক মাইক্রোফাইন্যান্স কর্মসূচির সিনিয়র পরিচালকের নির্দেশনা অনুযায়ী গ্রাহকদের জীবন জীবিকার কথা বিবেচনা করে মাঠ পর্যায়ে পরবর্তি নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত আগামী ৩০ শে জুন পর্যন্ত কিস্তি আদায় কর্মসূচি বন্ধ রেখেছে ব্র্যাক। অন্যদিকে দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখার জন্য সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে নিরাপদে যাদের সবচেয়ে বেশী প্রয়োজন তাদেরকে ঋণ বিতরন করছে সিরাজদিখান ও মুন্সীগঞ্জ ব্র্যাক। তাছাড়া ইতোমধ্যে মাইগ্রেশন কর্মসূচির মাধ্যমে করোনা কালীন সময়ে যারা মধ্যপ্রাচ্য থেকে ফেরৎ এসে অর্থনৈতিক ভাবে দুরবস্থার পরেছে তাদের ভিতর থেকে ১৩ জনকে আর্থিক সহায়তা প্রদানসহ ৯৬ জন প্রক্রিয়াধীন আছে। ইউরোপ থেকে ফেরৎ আসা ৭ জন সহায়তা পেয়েছেন এবং ৩৮ জন্য প্রক্রিয়াধীন আছে। ব্র্যাকের মাধ্যমে উক্ত আর্থিক সহায়তা পেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ মানুষগুলো পুনরায় ঘুরে দাড়ানোর স্বপ্ন দেখছে।

ব্র্যাক মুন্সীগঞ্জ অঞ্চলের আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক (দাবি) বি, এম আফজাল হোসেন মুঠোফোনে জানান, ব্র্যাকের জন্ম লগ্ন ১৯৭২ সাল থেকে অদ্যবধি যে কোন দূর্যোগকালীন সময়ে ব্র্যাক কাজ করে যাচ্ছে এবং ব্র্যাকের ভিশনে এটা ২০৩০ সাল পর্যন্ত অব্যহত থাকবে ।

সিরাজদিখান এলাকা ব্যবস্থাপক মোঃ জাকির হোসেন বলেন, দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে ব্র্যাক মানুষের প্বার্শে দাড়ানোর যে সুযোগ করে দিয়েছে তার জন্য আমরা সকল কর্মী গর্বিত এবং আনন্দিত। দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে ব্র্যাকের কার্যক্রমের প্রশংসা করছে ব্র্যাকের গ্রাহকবৃন্দ ও এলাকার সর্বস্তরের লোকজন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *