সুন্দরবনে আম্পানের তাণ্ডবে ক্ষতি ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের চেয়েও তিনগুণ বেশি

এস,এম,হাবিবুল হাসান :
বিশ্বের বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবনে সুপার সাইক্লোন ঘূর্ণিঝড় আম্পানের তাণ্ডবে যে ক্ষতি হয়েছে তা ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের চেয়েও তিনগুণ বেশি।

সুপার সাইক্লোন আম্পানে সুন্দরবনের ১২ হাজার ৩শ’৫৮টি গাছ ভেঙে গেছে বলে প্রাথমিক তদন্তে এগুলো উঠে এসেছে। বন বিভাগের অবকাঠামোর ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ২ কোটি ১৫ লাখ টাকা। ২০১৯ সালের ১০ নভেম্বর ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে সুন্দরবনের ৪ হাজার ৫শ’৮৯টি গাছ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। আর বন বিভাগের অবকাঠামোগত ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ ছিল ৬২ লাখ ৮৫ হাজার টাকা।

আম্পানের আঘাতের পর সুন্দরবনের ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণে বন বিভাগের গঠিত চারটি কমিটির রিপোর্ট থেকে এ তথ্য উঠে এসেছে। বনবিভাগের চারটি কমিটি রোববার (২৪ মে) বিকালে খুলনা অঞ্চলের বন সংরক্ষকের কাছে প্রতিবেদন দাখিল করে।

প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে, আম্পানের আঘাতে পশ্চিম সুন্দরবনের দুটি রেঞ্জ এলাকায় ১২ হাজার ৩শ’৩২টি গাছ ভেঙে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত এ সব গাছের মধ্যে গরান গাছের সংখ্যা বেশি। যার মূল্য ১০ লাখ ১০ হাজার ৫শ’৬০ টাকা। এ ছাড়া স্থাপনা, জেটি, উডেন ট্রেইল, ওয়াচ টাওয়ার ও অবকাঠামোর ৪৭ লাখ ৫০ হাজার টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তবে বাঘ, হরিণসহ অন্য কোনো বন্য প্রাণীর ক্ষতি হয়নি।

পূর্ব সুন্দরবনের দুটি রেঞ্জ এলাকায় ২৬টি গাছ ভেঙে গেছে। এ বিভাগের আওতায় জব্দ থাকা বেশ কিছু কাঠ জোয়ারের পানিতে ভেসে গেছে। এতে আর্থিক ক্ষতি ৭ লাখ ৬ হাজার ৮শ’৩০ টাকা। পাশাপাশি পূর্ব বনবিভাগে ১ কোটি ৬০ লাখ টাকার অবকাঠামোগত ক্ষতি হয়েছে।

সুন্দরবন পশ্চিম বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা গণমাধ্যমকে জানান, সুন্দরবন থেকে সব ধরনের গাছ কাটা নিষিদ্ধ রয়েছে। ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও সেগুলো ওভাবেই থাকবে, কোনো গাছ কাটা হবে না। সুন্দরবন নিজ থেকেই বুলবুলের ক্ষতি কাটিয়ে উঠেছে। আম্পানের ক্ষয়ক্ষতিও সুন্দরবন নিজেই কাটিয়ে উঠবে। আমাদের কেবল বন বিভাগের প্রয়োজনে ক্ষতিগ্রস্ত অবকাঠামোগুলোর মেরামত করতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *