পরিবেশ রক্ষায় সিরাজগঞ্জে কিশোর তরুণদের প্রতিবাদ

বিশেষ প্রতিনিধিঃ
“জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ে বিএনসিপি সিরাজগঞ্জ প্রদেশের প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করেছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল চাইল্ড পার্লামেন্ট বিএনসিপি সিরাজগঞ্জ ও অন্যান্ন সমাজসেবামূলক শিশু কিশোর ও তরুণ সংগঠনের সদস্যরা।ফ্রাইডেস ফর ফিউচার, শিশুর আলো ফাউন্ডেশন, ব্রাইটারস এসোসিয়েশিন ও বিএনসিপি সিরাজগঞ্জ প্রদেশর ব্যাবস্থাপনায় ২২ নভেম্বর ২০১৯ শুক্রবার তারিখে বেলা চারটায় কেন্দ্রীয় স্বাধীনতা সৌধ প্রাঙ্গণে জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক প্রতিবাদ কর্মসূচি পালন করেছে।এই বিষয়টিকেই সামনে নিয়ে উক্ত প্রতিবাদ কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন বিএনসিপি সিরাজগঞ্জ প্রদেশের মাননীয় স্পিকার টি.এম.মুস্তাক শাহরিয়ার শুভ,দুর্যোগ,ত্রাণ,বন ও পরিবেশ বিষয়ক মন্ত্রী মো:লাবিবুর রহমান আশিক,অর্থমন্ত্রী সাদ বিন মাসুদসহ সাধারণ সদস্যবৃন্দ।

জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ে মাননীয় স্পিকার টি.এম.মুস্তাক শাহরিয়ার শুভ তার বক্তব্যে বলেন,”জলবায়ু পরিবর্তনের মতো ভযাবহ বিপর্যয়কে প্রতিরোধ করতে বর্তমান প্রজন্ম অর্থাৎ তরুণ প্রজন্মকে ভূমিকা রাখতে হবে।তরুণদের আজ ভুলে গেলে চলবে পৃথিবীর সকল উন্নয়ন ও বিপ্লবের কারিগর তরুণরাই।তাই,হেলাফেলায় সময় না কাটিয়ে তাদের জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব কমানোর জন্য কাজ করা উচিত।আর বিশ্বনেতাদের উদ্দেশ্যে বলছি,তারা যদি আমাদের পরিবেশকর্মী ও জনসাধারণকে সাহায্য করে আর জনগণ যদি সচেতন হয়,তবে এই পৃথিবী জলবাযু পরিবর্তনের প্রভাব থেকে রক্ষা পাবে বলে আশা করি।

বিএনসিপির দুর্যোগ,ত্রাণ,বন ও পরিবেশ বিষয়ক মন্ত্রী মো:লাভীব উদ্দিন আশিক তার বক্তব্যে বলেন,”পৃথিবীর সামনে যে ভয়ানক বিপদটি অপেক্ষা করছে অর্থাৎ জলবায়ু পরিবর্তন কে প্রতিরোধ করা কোনো ছেলেখেলা নয়।এ বিষয়ে সকল পৃথিবীবাসীকেই এগিয়ে আসতে হবে।তরুণ প্রজন্মের পাশাপাশি রাষ্ট্রনায়করা বিষযটি গুরুত্বের সহিত গ্রহণ করলে,আশা করা যায় জলবায়ু পরিবর্তনকে প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে।

“উক্ত প্রতিবাদ কর্মসূচি সিরাজগঞ্জ বাসীর মধ্যে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে এবং জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে কাজ করার আগ্রহ জুগিয়েছে।পরিশেষে,শৃঙ্খলাবদ্ধ পরিবেশে সুন্দরভাবে উক্ত প্রতিবাদ কর্মসূচি সম্পন্ন হয়েছে।

প্রসংগতঃ সমসাময়িক প্রেক্ষাপটে বিশ্ব যখন উন্নতির চরম শিখড়ে আরোহণের প্রস্তুতি নিচ্ছে,তখনই পৃথিবীবাসীর সামনে এক আতঙ্কের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে জলবায়ু পরিবর্তন।উঁচুমাপের বিজ্ঞানী হতে শুরু করে সাধারণ জনগণ পর্যন্ত যখন জলবাযু পরিবর্তনের প্রভাব নিয়ে চিন্তিত,তখন বিশ্বনেতারা বিষয়টিকে হেলায় উঁড়িয়ে দিচ্ছেন।এমন পরিস্থিতিতে সর্বস্তরের জনতার এগিয়ে আসার মাধ্যমেই বিশ্বনেতাদের টনক নড়ানো সম্ভব আর সম্ভব প্রাণপ্রিয় এই নীলাভ গ্রহটিকে জলবায়ু পরিবর্তনের ধ্বংসলীলা থেকে রক্ষা করা।সুইডিশ কিশোরী গ্রেটা থুনবার্গের একক প্রতিবাদ থেকে এখন বিশ্ববাসীর প্রতিবাদে পরিণত হওয়া ‘ফ্রাইডেস ফর ফিউচার’যেমন বিশ্বনন্দিত হয়েছে,তেমনই নজির স্থাপন করেছে বিশ্বনেতাদের সামনে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *