পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় অজ্ঞাত নামা লাশের হত্যারহস্য উদঘাটন, জড়িতদের গ্রেফতার

পঞ্চগড় প্রতিনিধি :
গত ১৮ অক্টোবর পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলায় মস্তকবিহীন দেহ উদ্ধারের পাঁচদিন পর চা বাগান থেকে একটি মাথা উদ্ধারের ঘটনায় লাশের হত্যারহস্য উদঘাটন ও জড়িতদের গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় পঞ্চগড় পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইউসুফ আলী এসব তথ্য জানান।
পুলিশ সুপার জানান, মস্তকবিহীন ওই ব্যক্তির নাম আব্দুর রব। সে নোয়াখালী জেলার বেগমগঞ্জ থানার দূর্গাপুর ইউনিয়নের মৃত আলী করিমের ছেলে। নিহত আব্দুর রব পেশায় ছিলো কাঁচামাল ব্যবসায়ী। ব্যবসা সূত্রে তেঁতুলিয়া উপজেলার শালবাহান এলাকার আব্দুল মজিদের ছেলে মরিচ ব্যবসায়ী মানিকের সাথে তার পরিচয় হয়। মানিক ও তার ছেলে আমান দুজন মিলে আব্দুর রবকে হত্যা করে। লাশের গায়ে পেঁচানো বিছানার চাদর ও প্রযুক্তিগত তথ্যের সূত্র ধরে আসামী মানিকের স্ত্রী আফরোজাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ হেফাজতে নিলে সে গুরুত্বপুর্ণ তথ্য দেয়। তার তথ্য মতে মঙ্গলবার (১৯ নভেম্বর) নীলফামরী জেলার ডোমার উপজেলার জোড়াবাড়ি এলাকা থেকে পলাতক আসামী মানিক ও তার ছেলে আমানকে গ্রেফতার করা হয়।
তাদের নিয়ে অভিযানে চালিয়ে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছুড়ি এবং ভিকটিমের মোবাইল পুকুর থেকে উদ্ধারসহ লাশ বহনের কাজে ব্যবহৃত মোটর সাইকেলটি জব্দ করা হয়। বুধবার (২০ নভেম্বর) আসামী মানিক ও আমান যে ছুরিটি দিয়ে জবাই করেছে সে ছুরিটি আমরা উদ্ধার করেছি। দুইজনে আমাদের কাছে স্বীকার করেছে তারা হত্যা করেছে এবং ঘটনাটি ঘটিয়েছে। তাদের আদালতে হাজির করা হলে তারা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে ।
পুলিশ সুপার জানান, এই ভাবে মামলাটি আমরা উদঘাটন করেছি। সমস্ত তথ্য একত্র করে চার্জসিট দিবো তাদের বিরুদ্ধে। সংবাদ সম্মেলনে এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাঈমুল হাসান,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার( সদর সার্কেল) সুদর্শন কুমার রায়সহ গণমাধ্যম কর্মীরা উপস্থতি ছিলেন।
উল্লেখ্য গত ১৮ অক্টোর সকালে তেতুলিয়া উপজেলার শালবাহান ইউনিয়নের ব্রহ্মতল এলাকার ঝিকদহ ব্রীজের নিকট মস্তকবিহীন অজ্ঞাতনামা ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ বিষয়ে তেতুলিয়া মডেল থানায় নিয়মিত আইনে হত্যা মামলা দায়ের করা হলে মামলার পর একই দিনে পরিচয় মিলে অজ্ঞাতনামা লাশটির।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *