সিরাজদিখানে অজ্ঞাত এক বৃদ্ধার ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার, হত্যা না আতœহত্যা!

সিরাজদিখান (মুন্সিগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ
মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখানে অজ্ঞাত পরিচয়ে এক বৃদ্ধা (৬০) এর মরদেহ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ।
গত শুক্রবার বিকালে উপজেলার রশুনিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ আবিড়পাড়া গ্রামের তালুকদার বাড়ী মৃত শামসু তালুকদারের বাড়ীর একটি দোচালা টিনের বসত ঘর থেকে ওই বৃদ্ধার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে ময়না তদন্তের জন্য মৃতদেহ মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। ঘটনাটি নিয়ে স্থানীয় লোকজনের মাঝে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় লোকজনের ধারণা পরিকল্পিত ভাবে তাকে হত্যা করে ঘরের আড়ার সাথে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। অজ্ঞাত ওই বৃদ্ধার আতœহত্যাকে ঘিরে ইতিমধ্যে রহস্যের দানা বাধতে শুরু করেছে স্থানীয় লোকজনের মাঝে। এদিকে পুলিশ বলছে ময়না তদন্তের রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত হত্যা না আতœহত্যা বলা যাচ্ছে না। এলাকাবাসীর প্রশ্ন কি করে ওই বৃদ্ধা ওই ঘরে কি করে এলো। কে বা তাকে আড়ার সাথে ফাঁস লাগিয়ে ঝুলিয়ে রাখলো? ওই বৃদ্ধার নাম ঠিকানা এখনো পাওয়া যায়নি।
স্থানীয়রা জানান, মৃত শামসু তালুকদারের বাড়ীতে দিল বাহারী (৬০) নামে এক বৃদ্ধা ঘর ভাড়া নিয়ে বসবাস করছিলেন। তিনি মধ্যপাড়া ইউনিয়নের মধ্যপাড়া গ্রামের মৃত আব্দুল জাব্বারের স্ত্রী। শুক্রবার দুপুর অনুমান দেড়টার দিকে তিনি ঘরের পাশে রান্না ঘরে রান্না করছিলেন। রান্নাঘর থেকে এসে দেখেন তার ঘরের দুয়ারে একজন বৃদ্ধ মহিলা শুয়ে আছে। পরে ওই মহিলার কাছে নাম ঠিকানা জানতে চাইলে কিছুই বলেন নি। তার পর তিনি ওই বৃদ্ধাকে ঘরের দুয়ারে রেখেই রান্না ঘরে চলে যান। এর কিছুক্ষণ পরে ভাড়াটিয়া ওই বৃদ্ধা তার ঘরে ঢুকে দেখেন ওই বৃদ্ধা আড়ার সাথে ফাঁস লাগিয়ে ঝুলে আছে। পরে ভাড়াটিয়া বৃদ্ধা বাড়ীর মালিক বাবু তালুকদারসহ এলাকার লোকজনকে ঘটনার বিষয় জানান। পরে স্থানীয় লোকজন থানায় খবর দেন।
ভাড়াটিয়া দিল বাহারী বেগম বলেন, আমি পাকঘরে গিয়ে পাক করছিলাম। ঘরে ঢোকার সময় দেখি একটা মহিলা দুয়ারে শুয়ে আছে। আমি তাকে নাম ঠিকানা জিজ্ঞাস করলাম। সে কিছুই বললো না। পরে আমি পাক ঘরে চলে যাই। পাক ঘর থেকে আবার ঘরে এসে দেখি সে আড়ার সাথে ফাঁসি দিয়া ঝুলতাছে। এর আগে আমি তারে কোনদিন দেখি নাই।
বাড়ীর মালিক বাবু তালুকদার বলেন, আমি তখন বাড়ীতে ছিলাম না। আমাকে ফোন করে বাড়ীর লোকজন বিষয়টি জানায়। পরে আমি স্থানীয় মেম্বার ও এলাকাবাসীর মাধ্যমে থানায় খবর পাঠাই। এর বেশী আমি কিছুই জানি না।
সিরাজদিখান থানার এসআই মো.মামুন জানান,প্রথম মনে হচ্ছে আতœহত্যাই তবে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে । রিপোর্ট আসলে বুঝা যাবে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *