কাজিপুরে ৯৫ ফাউন্ডেশনের উদ্দোগে মাসব্যাপী মানবিক সহায়তা কার্যক্রমের উদ্বোধন করলেন-মোহাম্মদ নাসিম এমপি

স্টাফরিপোর্টার: সিরাজগঞ্জ কাজিপুরে ৯৫ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ১৫’শ করোনাভাইরাসে ক্ষতিগ্রস্ত বিভিন্ন পেশাজীবী ও সাধারণ পরিবারের মাঝে মাসব্যাপী মানবিক সহায়তা প্রদান করার কর্মসূচী উদ্ধোধন করা হয়েছে। আজ রবিবার আলেম সমাজের এ সহায়তা প্রদান অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন আলহাজ্ব মোহাম্মদ নাসিম-এমপি ও সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রী।
এ সময় ফোন কনফারেন্স এ যোগদেন সাবেক সাংসদ প্রকৌশলী তানভীর শাকিল জয়, সংগঠনের সভাপতি প্রকৌশলী আবু রায়হান, সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী মো. আব্দুল্লাহ আল নোমান জাকির, ফাউন্ডেশনের সি. সহ-সভাপতি প্রকৌশলী মোশারফ হোসেন, সাংগঠনির সম্পাদক ছাব্বির আহমেদ ও সংগঠনের উপদেষ্ঠা পুলিশ সুপার জনাব নাছিরউদ্দিন যুবায়ের।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- কাজিপুর উপজেলা চেয়ারম্যান জনাব খলিলুর রহমান সিরাজী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হাসান সিদ্দিকী, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. লুৎফর রহমান, ফাউন্ডেশনের সহ-সভাপতি সোলায়মান হোসেন, হাফিজুর রহমান, প্রচার সম্পাদক বেলাল হোসেন, মোনারুল ইসলাম, জাহিদুল ইসলাম, আব্দুল মান্নান মিঠু, মাসুদুর রহমান রঞ্জু, মো. আলী জিন্নাহ, হাসানুর রহমান মনি, বেলাল হোসেন, নাফিউর রহমান বাবু, শুভগাছা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি গিয়াসউদ্দিন সহ নানা পেশাজীবী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

প্রথমদিনেই দুই শতাধিক পরিবারের মধ্যে ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দেয়ার মাধ্যমে এই কর্মসূচীর যাত্রা শুরু করা হয়েছে। এই কর্মসূচীর আওতায় উপজেলার মোট ৬টি ইউনিয়নে প্রাথমিক ভাবে চিহ্নিত এই সকল পরিবারর মাঝে এই সহায়তা করা হবে।

কর্মসূচির উদ্বোধক আলহাজ্ব মোহাম্মদ নাসিম-এমপি ও সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন- মানুষ মানুষের জন্য। করোনা ভাইরাসের কারণে যে সংকট সৃষ্টি হয়েছে তা কেবল বাংলাদেশে নয়। এর প্রভাবে পুরো বিশ্ব আজ শঙ্কিত ও স্তব্ধ।কাজিপুরে কর্মহীন কোন মানুষ অনাহারে থাকবে না।৯৫ ফাউন্ডেশন এর মাধ্যমে আমার সহযোগিতায় ১৫শ কর্মহীন পরিবার এই সহায়তা করছে। মহামারী করোনা থেকে উত্তরণের একমাত্র উপায় হলো সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা আর নিজে ও নিজের পরিবেশকে পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে।

জানাগেছে,করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটিতে মানবেতর জীবনযাপন করছে গরিব ও দিনমজুর শ্রেণির লোকজন। ঘরের বাইরে যেতে না পারায় কর্মহীন হয়ে পড়া এসব মানুষ খেয়ে না খেয়ে দিনাতিপাত করছেন। সরকারের পাশাপাশি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ৯৫ ফাউন্ডেশন, কাজিপুর এসব মানুষের পাশে সহযোগিতা করে চলেছে। আজ রবিবার আলেম সামাজের দুই শতাধিক পরিবারের মধ্যে ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দেয়ার মাধ্যমে এই কর্মসূচীর যাত্রা শুরু করলো।

প্রকৌশলী তানভীর শাকিল জয় দেশের এই ক্রান্তিকালিন সময়ের বর্ননা দিয়ে বলেন- জীবন আগে জীবিকা পরে। জরুরী স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন। স্বাস্থ্যবিধি মানলে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ করা সহজ হবে। সাবান-পানি দিয়ে ঘনঘন হাত ধুতে হবে। হাঁচি-কাশি শিষ্টাচার মেনে চলতে হবে। যেখানে-সেখানে থুতু কফ ফেলা যাবে না। করমর্দন বা কোলাকুলি থেকে বিরত থাকুন। যতদূর সম্ভব ঘরে থাকবেন। অতি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে যাবেন না।নিরাপদে বাড়িতে অবস্থান করুন। পরিবার, সমাজ ও দেশকে সুরক্ষিত রাখুন।

উপজেলা চেয়ারম্যান মো. খলিলুর রহমান সিরাজী বলেন-সাম্প্রতিক সময়ে যাঁরা বিদেশ থেকে এসেছেন, তাঁদের নিখুঁতভাবে চিহ্নিত করে বাধ্যতামূলকভাবে কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করতে হবে। ঢাকা থেকে বিপুল মানুষ গ্রামে গেছে, গ্রামে আগে থেকেই মানুষ আছে। ফলে গ্রামে মানুষের ঘনত্ব বেড়েছে। ফলে সতর্কতা খুবই জরুরি। এ ছাড়া গ্রামে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার বিষয়টিও মানা উচিত।আর ৯৫ ফাউন্ডেশন কাজিপুর এই সংগঠনটি সব সময় কাজিপুরের যে কোন দুর্যোগে সবার আগে সহযোগিতার হাত বাগিয়ে দেয়। তাদের জীবানু মুক্তকরণ কার্যক্রম এখন পুরো উপজেলার সকল গ্রামে ও বাজারে স্থানীয় তরুনরা করে যাচ্ছে। এটা একটা অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত।

সংগঠনের উপদেষ্ঠা পুলিশ সুপার জনাব নাছিরউদ্দিন যুবায়ের বলেন- বর্তমানে করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে দেশজুড়ে এক ধরনের লকডাউন চলছে। প্রায় সবকিছু বন্ধ রয়েছে। এ অবস্থায় সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন অপ্রাতিষ্ঠানিক খাতের শ্রমিক ও নিম্ন আয়ের মানুষ। এমনকি গৃহকর্মী, ভিক্ষুক ও দিনমজুরদের আয়ও বন্ধ হয়ে গেছে। এ অবস্থা যত দীর্ঘায়িত হবে, ততই তাদের ভোগান্তি বাড়বে। তাই শ্রমজীবী মানুষদের পাশে ৯৫ ফাউন্ডেশন,কাজিপুর তাদের সীমিত সাধ্যের মধ্যে নিম্ন আয়ের মানুষ পাশে দাড়াবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হাসান সিদ্দিকী বলেন-নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য বাজারে যাতে পর্যাপ্ত থাকে, সে বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে। কেউ যেন পণ্য মজুদ করতে না পারে, সে জন্য কড়া নজরদারি রাখতে হবে। বাজার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশের যে ভূমিকা, তা অবশ্যই যথা যথভাবে পালন করতে হবে। আর সকলকে জরুরী স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে আহবান জানান।

সংগঠনের সভাপতি প্রকৌশলী আবু রায়হান বলেন- যারা বিদেশ থেকে আসছে তাদের অবশ্যই ‘কোয়ারেন্টিনে (সঙ্গত্যাগ)’ রাখা বাধ্যতামূলক করতে হবে। জরুরী প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে না যাওয়ার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান। করোনাভাইরাস প্রতিরোধ ও এর প্রাদুর্ভাব জনিত যে কোনো জরুরি পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রয়োজনীয় সহযোগিতার লক্ষ্যে আমরা সরকারের পাশাপাশি প্রস্তুত আছি। প্রয়োজনে প্রান্তিক জনগোষ্ঠির জন্য নিত্য পন্য ও জরুরী ঔষধ সামগ্রী প্রদান করা হবে।

সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী মো. আব্দুল্লাহ আল নোমান জাকির বলেন- সামাজিক দায়বদ্ধতার কারণেই আমাদের সংগঠনটি নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। প্রান্তিকজন গোষ্ঠিকে কর্মবিরত রাখাটাই আমাদের জন্য নতুন চ্যালেঞ্জ।মাসব্যাপি মানবিক সহায়তা কার্যক্রম হাতে নিয়েছি।দরকার হলে আরো বাড়ানো হবে। তিনি আরো বলেন এ কাজে স্থানিয় প্রশাসন তাহাদের সার্বিক সহযোহিতা করছেন বলে জানান।এছাড়াও সংগঠনের পক্ষ থেকে নিম্ন আয়ের বিভিন্ন পেশাজীবী ও সাধারণ শ্রমজীবী ১৫০০ পরিবারকে চাল ও ডালসহ নিত্য দিনের পন্য সামগ্রী প্রদানের আয়োজন ও মজুত আছে যা বাড়ি বাড়ি পৌছে দেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *