দেশ বরেণ্য সাবেক ফিফা রেফারী বাবু’র জার্সিটি ২লাখ টাকায় নিলামের সুচনা করলেন তরুন ব্যবসায়ি তমাল

এস,এম,হাবিবুল হাসান :
সাতক্ষীরার কৃতি সন্তান দেশ বরেণ্য সাবেক ফিফা রেফারি তৈয়ব হাসান শামসুজ্জামান বাবু’র আহবানে তার জীবনের অন্যতম সেরা নিজের ইতিহাস করা জার্সিটি নিলামের প্রথম ডাক হিসেবে ২লাখ টাকায় কেনার ইচ্ছা পোষন করেছেন সাতক্ষীরার তরুন ব্যবসায়ি ক্রীড়া পৃষ্টপোষক তুফান কোম্পানী লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক শেখ তানজিম কালাম তমাল। তিনি এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে মানবতার কল্যানে এগিয়ে আসতে জার্সিটি নিলামে প্রতিদ্বদ্বিতা করারজন্য দেশ-বিদেশের ব্যবসায়ি ক্রীড়া সংগঠকসহ যে কোনো আগ্রহী ব্যক্তিকে এগিয়ে আসার আহবান জানান।

শেখ তানজিম কালাম তমাল বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে গোটা বিশ্ব স্থবির। এমন পরিস্থিতিতে এগিয়ে আসছেন দেশ-বিদেশের অনেক খেলোয়াররা। যে যার অবস্থান থেকে অর্থ সংগ্রহে এগিয়ে আসছেন। অনেকে নিলামে তুলছেন নিজেদের জার্সি
ব্যাটসহ জীবনের অনেক স্মরনীয় মূহুর্তের স্মারকগুলি। ঠিক এমনই সময় নিজের স্মরনীয় জার্সি নিলামে তোলার ঘোষনা দেন দেশের খ্যাতিমান সাবেক ফিফা রেফারি সাতক্ষীরার গর্ব তৈয়ব হাসান বাবু। তার এই চিন্তাকে সাধুবাদ জানাতে আমি প্রাথমিকভাবে এটি কিনতে রাজি হয়েছি। তবে তিনি আশা করেন নিলামে জার্সিটির মুল্য আরও বেশী হবে। এই নিলামে সকলকে অংশ গ্রহনের জন্য আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, যদি কোনো সহৃদয়বান ব্যক্তি তার এই মহতি উদ্যোগে এগিয়ে আসেন তাহলে
তিনি খুশীই হবেন।

ব্যবসায়ী তমাল

উল্লেখ্য, দীর্ঘ ১৮ বছরের আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দাপিয়ে রেফারিং করা তৈয়ব হাসান শামসুজ্জামান বাবু ২০১৩ সালে নেপালের কাঠমান্ডুতে অনুষ্ঠিত দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম রেফারি হিসেবে সাফের ফাইনাল ম্যাচ পরিচালনা করেন। সে ম্যাচে ভারতকে ২-০
গোলে হারিয়ে আফগানিস্তান চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে। এই ম্যাচে তিনি যে জার্সিটি পরে খেলা পরিচালনা করেন সেই জার্সিটি সম্প্রতি নিলামে তোলার ঘোষনা দেন।

তৈয়ব হাসান সামসুজ্জামান বাবু বলেন, তিনি নভেল করোনাভাইরাসে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাড়াতে তার জীবনের অনন্য এই জার্সিটি নিলামে তুলতে চান। তা থেকে প্রাপ্ত অর্থ তিনি পুরোটাই ব্যয় করবেন করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য। তৈয়ব হাসান সামসুজ্জামান এর রয়েছে বাংলাদেশের কোনো রেফারি হিসেবে সবচেয়ে বেশী আন্তর্জাতিক ম্যাচ পরিচালনা করার রেকর্ড। টানা ১০ বছর এএফসির এলিট প্যানেলেও ছিলেন তিনি।আন্তর্জাতিক রেফারি ছিলেন ১৯৯৯-২০১৬ সাল পর্যন্ত। দীর্ঘ ১৮ বছরে ১শ’র বেশী আন্তর্জাতিক ম্যাচ পরিচালনা করেন তিনি। বিশ্বকাপ বাছাই, অলিম্পিক বাছাই, এএফসি চ্যাম্পিয়নস লীগ, এএফসি কাপ, দুটি এশিয়ান গেমস, এএফসি বিভিন্ন টুর্নামেন্টের ফাইনাল রাউন্ড, সাফ, সাফ গেমসসহ অনেক ম্যাচ পরিচালনার বর্নাঢ্য অভিজ্ঞতা রয়েছে তার। ফিফা রেফারী হিসেবে তিনি জাপান, চীন, কোরিয়া, অস্ট্রেলিয়া, সৌদি, কাতার, কুয়েত, ইরান, জর্ডানসহ ৪০টির মত দেশে খেলা পরিচালনা করেছেন। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *