বগুড়ার সোনাতলায় পৃথক ঘটনায় ২জন খুন, আহত ৫, গ্রেপ্তার -৫

বগুড়া প্রতিনিধি।।
ছাগলে লাউ গাছ খাওয়াকে কেন্দ্র করে ও সিমকার্ড বিক্রির জের নিয়ে বগুড়ার সোনাতলায় পৃথক ঘটনায় কলেজ ছাত্র সহ ২ জন খুন হয়েছেন । এত আহত , আহত হয়েছেন ৫জন । গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৫জনকে।
জানা গেছে , বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার জোড়গাছা ইউনিয়নের ঠাকুরপাড়া গ্রামের জনৈক জাহাঙ্গীর আলম বাদশার কলেজ পড়–য়া পুত্র ও সোনাতলা সরকারী নাজির আকতার কলেজের ডিগ্রী ২য় বর্ষের ছাত্র পারভেজ ইসলাম সুমন (২৪) ও একই গ্রামের আলহাজ্ব মোজাহার আলী প্রামানিকের পুত্র মাসুদ রানা (২২) এর সাথে মোবাইল ফোনের সিমকার্ড বিক্রির ব্যবসা করতো।
তাদের মধ্যে সিম বিক্রির টাকা ভাগ বাটোয়ারাকে কেন্দ্র করে শনিবার বেলা আনুমানিক ২টার সময় হাটকরমজা বাজারে প্রথমে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটির হয় । এক পর্যায়ে দিন দুপুরে জনসম্মুখে মাসুদ রানা একটি ধারালো অস্ত্র দিয়ে পারভেজ ইসলাম সুমনের বুকে উপুর্যুপরি আঘাত করে। এতে রক্তাক্ত অবস্থা সে মাটিয়ে লুটিয়ে পড়ে।
পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে বগুড়ার শজিমেক হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য সিএনজি যোগে নিয়ে যাওয়ার পথে সে মারা যায়। পরে শজিমেক হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক সুমনের মৃত ঘোষনা করে।
অপরদিকে সোনাতলা সদর ইউনিয়নের চকনন্দন গ্রামে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে গতকাল শনিবার সকাল ১০টায় ছাগল লাউ গাছ খাওয়াকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় শফিকুল ইসলাম (৪৫) নামের এক ব্যক্তি মারা গেছে। সে ওই গ্রামের মৃত জয়েন উদ্দিন প্রামানিকের ছেলে। এ সময় প্রতিপক্ষের মারপিটে নিহত ব্যক্তির স্ত্রী লাভলী বেগম (৩৮), মা সামচুন নাহার বেওয়া (৬২), মেয়ে শান্তনা বেগম (২৪), ভাই বুলবুল আহম্মেদ, ভাতিজি মামুনী বেগম (২২) আহত হয়। আহতদেরকে সোনাতলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত শুক্রবার ওই গ্রামের মৃত আছমত মোল্লার ছেলে আব্দুল খালেক মোল্লার লাউগাছ ছাগল খেয়ে ফেলে। এতে খালেক মোল্লার লোকজন শফিকুল ইসলামের ছাগল সন্দেহ করে গালাগালি করে। এতে করে গতকাল শনিবার সকাল আনুমানিক ১০টার সময় এ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে খালেক মোল্লার লোকজন ধারালো অস্ত্র নিয়ে শফিকুল ইসলাম ও তাদের লোকজনের উপর হামলা চালায়। এসময় প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে শফিকুল ইসলাম (৪৫) মারা যায়।
এ ঘটনায় পুলিশ তাৎক্ষনিক ২ জন মহিলা সহ ৫ জনকে আটক করেছে।
এ বিষয়ে সোনাতলা থানার অফিঢসার ইনচার্জ (ওসি সার্বিক) আব্দুল্লাহ আল মাসউদ চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। এছাড়াও তিনি বলেন, লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।
এ রিপোর্ট লেখা অবধি মামলা দায়েরের প্রস্তুুতি চলছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *