সাতক্ষীরায় সামাজিক দূরত্ব না মানায় ৭৭ হাজার ৩শ টাকা জরিমানা

এস,এম,হাবিবুল হাসান :
সাতক্ষীরায় করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সামাজিক দূরত্ব না মেনে অহেতুক ঘোরাঘুরিসহ বিভিন্ন অভিযানে গত ২৪ ঘণ্টায় ৪৪টি মামলায় ৭৭ হাজার ৩শ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। সচেতনতা সৃষ্টি ও সাধারণ মানুষকে ঘরে রাখতে জেলাব্যাপী ২০ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, পুলিশ এবং ব্যাটালিয়ন আনসারের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। জেলাব্যাপী চলছে মাইকিং, করা হচ্ছে জীবাণু নাশক স্প্রে।

জেলাপ্রশাসন সূত্র জানায়, শনিবার(১১ এপ্রিল)সকাল থেকে জেলা এবং উপজেলা পর্যায়ে বিভিন্ন অভিযানে গত ২৪ ঘণ্টায় ৪৪টি মামলায় ৭৭ হাজার ৩শ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়েছে। এর মধ্যে সাতক্ষীরা সদর উপজেলায় ১৭টি মামলায় ১১ হাজার ৭শ টাকা, তালা উপজেলায় ৩টি মামলায় ২ হাজার ৫শ টাকা, কালিগঞ্জ উপজেলায় ২টি মামলায় ৩ হাজার ৬ শ টাকা, শ্যামনগর উপজেলায় ৮টি মামলায় ৩৮ হাজার টাকা, দেবহাটা উপজেলায় ৪টি মামলায় ১৮ হাজার ৫শ টাকা, আশাশুনিতে ৮টি মামলায় ২ হাজার ৬শ টাকা ও কলারোয়া উপজেলায় ২টি মামলায় ৪শ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এদিকে, দেশের কয়েকটি জেলায় করোনা রোগী সনাক্ত হওয়ায় ও বিভিন্ন জেলা লক ডাউন ঘোষণার প্রেক্ষিতে ঐ সকল জেলাতে কর্মরত লোকজন নিজ নিজ জেলায় ফিরতে চেষ্টা করছে। এর প্রেক্ষিতে সাতক্ষীরা জেলাতে সাম্প্রতিক সময়ে প্রায় ৩ হাজারের মত মানুষ অন্য জেলা থেকে এসেছে। এর মধ্যে নারায়নগঞ্জ থেকে আগত ৮ জনকে দেবহাটা উপজেলায় বাড়িতে কোয়ারেন্টাইন করা হয়েছে। কালিগঞ্জ উপজেলায় ৩শ৯১ জনকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। আশাশুনি উপজেলায় ১শ২ জনকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে এবং ৫শ৫০ জনকে বাড়িতে কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করা হয়েছে। বিভিন্ন জেলা থেকে আগত ১শ জনকে আশাশুনির বড়দল ইউনিয়নে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন করা হয়েছে। শ্যামনগর উপজেলায় ২শ৮৭ জনকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন ও ১ হাজার ৫শ জনকে বাড়িতে কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করা হয়েছে। এখনও যারা কোয়ারেন্টিনের বাহিরে আছে তাদেরকে চেকপোস্ট বসিয়ে কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করার চেষ্টা চলছে।

তথ্যমতে আজও সাতক্ষীরায় ৪ ট্রাকে করে টাঙ্গাইল থেকে ১শ ৫০ জন মানুষ ফিরছে। এ সকল মানুষকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন ও হোম কোয়ারেন্টাইন এর জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

তদুপরি, এ জেলাকে করোনা ঝুঁকি মুক্ত রাখতে জেলার সাথে পার্শ্ববর্তী জেলার সকল সীমান্ত এবং আন্তঃ উপজেলা সীমান্ত জরুরী সেবা ব্যতীত (যেমনঃ রোগীবাহী গাড়ী, ঔষধ পণ্যবাহী গাড়ী ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির মালামালবাহী গাড়ী) সকল প্রকার যানবাহন ও জনচলাচল নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত এ আদেশ বহাল থাকবে। অমান্যকারীর বিরুদ্ধে প্রচলিত আইনে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *