সাতক্ষীরায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে জেলা প্রশাসনের আপ্রান চেষ্টা, ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যহত

এস,এম,হাবিবুল হাসান :
সাতক্ষীরায় করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সামাজিক দূরত্ব বজায় না রেখে অহেতুক ঘোরাঘুরি করায় জেলাব্যাপী ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ৪২জনকে জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীদের বহনের জন্য সার্বক্ষণিক গাড়ির ব্যবস্থা করা হয়েছে। সাধারণ মানুষের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে ২৪ হাজার ফেস মাস্ক।
ইতোমধ্যে জেলায় পর্যাপ্ত পিপিই এসে পৌঁছেছে। এর মধ্যে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মুজদ রয়েছে ১৮৫০টি পিপিই। জেলার হাসপাতালগুলোতে এক হাজার পিপিই বিতরণ করা হয়েছে।

এছাড়া করোনা পরিস্থিতিতে কর্মহীন হয়ে পড়া খেটে খাওয়া মানুষের মাঝে বিতরণের জন্য ইতোমধ্যে জেলার সাতটি উপজেলা ও দুটি পৌরসভায় ৩১৫ মেট্রিক টন চাল ও ১২ লাখ ৭৫ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

জেলায় জনসমাগম কমিয়ে সাধারণ মানুষকে ঘরে ফেরাতে ২০ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে সেনাবাহিনী, পুলিশ ও ব্যাটালিয়ন আনসারের সার্বক্ষণিক টহল জোরদার করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, সাতক্ষীরা জেলার প্রতিটি উপজেলায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতামূলক অভিযান জোরদার করা হয়েছে। প্রতিটি উপজেলায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার, সহকারী কমিশনার (ভূমি) এবং সহকারী কমিশনারদের নেতৃত্ব মানুষকে নিজ বাড়িতে রাখতে সচেতনতামূলক অভিযানের পাশাপাশি মাইকিং করা হচ্ছে এবং শতভাগ হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করাসহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দোকান ছাড়া অন্যসব দোকান বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

সাতটি উপজেলায় সেনাবাহিনীর ৭টি টিমসহ জেলা সদরে পুলিশ এবং আনসারের সমন্বয়ে ৪টি টিম নিয়ে জেলা প্রশাসন এবং উপজেলা প্রশাসনের ম্যাজিস্ট্রেটগণ সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য শহরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান অব্যাহত রেখেছেন। তথ্য অধিদপ্তরের একটিসহ মোট ৩টি সচেতনতামূলক মাইকিং অব্যাহত আছে। এর মাধ্যমে সবাইকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে।

শুক্রবার(০৩ এপ্রিল) বিকালে জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামাল সদরের পারানদহ বাজার, কালিতলা বাজার, আবাদের হাটসহ বিভিন্ন স্থানে গিয়ে করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে মানুষকে সচেতন করেন। এ সময় তিনি জনসাধারণের প্রতি বিনা প্রয়োজনে বাড়ির বাইরে বের না হওয়া, প্রয়োজনে বাইরে আসলে মাস্ক পরা এবং একে অন্যের কাছ থেকে অন্তত তিন ফুট দূরত্ব বজায় রাখা এবং কিছুক্ষণ পর পর সাবান দিয়ে ২০ সেকেন্ড ধরে হাত ধোয়ার অনুরোধ জানান। এ সময় বিনা প্রয়োজনে মোটরসাইকেল নিয়ে ঘোরাঘুরি করায় মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ৩ জনকে জরিমানা করা হয়।

এদিকে, প্রতিটি উপজেলায় ইউনিয়ন ভিত্তিক দুস্থ ও সামাজিক নিরাপত্তা বলয়ের বাহিরে থাকা গরীব মানুষের তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। তালিকা অনুযায়ী বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দ থেকে ইতোমধ্যে জেলার সব উপজেলা ও পৌরসভার অনুকূলে ৩১৫ মেট্রিক টন চাল এবং ১২ লক্ষ ৭৫ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও পৌরসভার মেয়রগণ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের মাধ্যমে তালিকা প্রস্তুত করে এই ত্রাণ সহায়তা কর্মহীন হয়ে পড়া দুস্থ অসহায় মানুষের বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দিচ্ছেন।
জেলা প্রশাসন সূত্র আরও জানায়, উপজেলায় বিতরণের জন্য সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২ লক্ষ টাকার মাস্ক ক্রয় করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ২৪ হাজার মাস্ক মানুষের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে।

ইতোমধ্যে ডাক্তারদের চলাচলের জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যক গাড়ি সরবরাহ করা হয়েছে। সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১৮৫০টি পিপিই মজুদ রয়েছে। সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন হুসাইন সাফায়েত স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতে এক হাজার পিপিই বিতরণ করেছেন।

এছাড়া সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখায় শ্যামনগর উপজেলায় সেনাবাহিনীর সাথে ১৯ টি অভিযানকালে ৯ হাজার ৮শ টাকা, কালিগঞ্জ উপজেলায় ৫টি অভিযানে ৭ হাজার টাকা, আশাশুনি উপজেলায় ২ অভিযানে ৩ হাজার ৯শ টাকা ও তালা উপজেলায় ১৩ জনকে ৮ হাজার ৫শ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এদিকে, অসদুপায় অবলম্বনের মাধ্যমে টিসিবির পণ্য ক্রয় করে বিক্রির জন্য মজুদ করার অপরাধে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে শহরের কাছারী পাড়া মোড়ের লাবিব ভ্যারাইটি স্টোরকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। জনস্বার্থে সকল কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *