সিরাজদিখানে সাংবাদিককে মারধর, থানায় অভিযোগ

সিরাজদিখান (মুন্সিগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ
মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখান প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক ও দৈনিক সংগ্রাম সিরাজদিখান প্রতিনিধি রিয়াজ মাহমুদ মান্নানকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে দলিল লিখক মোঃ মোক্তার হোসেনের বিরুদ্ধে। গতকাল মঙ্গলবার ৩১ মার্চ সন্ধ্যা পৌনে সাতটার দিকে উপজেলার গোয়ালখালী স্ট্যান্ডে এ ঘটনা ঘটে। সে উপজেলার চিত্রকোট ইউনিয়নের গোয়ালখালী গ্রামের মৃত আয়নাল খার পুত্র। এ ব্যাপারে মোক্তার হোসেনসহ আরো একজনকে বিবাদী করে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার বিকাল ৪টার দিকে গোয়ালখালী গ্রামের জনৈক মৃত আনন্দ’র স্ত্রীর পিতার বাড়ী খারশুর (লালপুর) গ্রামে একটি সংবাদের তথ্য সংগ্রহ করতে যায় রিয়াজ মাহমুদ মান্নান। এরপর গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মোক্তার হোসেন তার বন্ধু শহিদুলকে দিয়ে ফোন করিয়ে গোয়ালখালী স্ট্যান্ডে ডেকে নেয় রিয়াজ মাহমুদ মান্নানকে। ডেকে নেওয়ার পর ওই বাড়ীতে কেন গিয়েছিস? এ বলে এলোপাথারী চর থাপ্পর, কিল, ঘুষি লাথি মেরে নিলাফুলা জখমসহ মাড়ির একটি দাঁত ভেঙে দেয় মোক্তার। স্থানীয় লোকজনে মান্নানকে মোক্তারের হাত থেকে রক্ষা করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য পাঠিয়ে দেয়।

ভুক্তভোগী সাংবাদিক রিয়াজ মাহমুদ মান্নান বলেন, প্রভাবশালী একটি মহল মৃত আনন্দ’র স্ত্রীর বাড়ী দখল করেছে বলে স্থানীয় লোকজনের কাছে শুনে নিউজের তথ্য সংগ্রহ ও যাচাই করার জন্য ওই বাড়ীতে গিয়ে শুনি মোক্তার ও মোক্তারের বন্ধু শহীদুল বাড়ীটি কিনতে না পেরে দখলের পায়তারা করছে। পরে তথ্য নিয়ে আমি চলে আসি। বিকালে শহিদুল আমাকে ফোন করে গোয়ালখালী মোড়ে যেতে বলে। আমি মোড়ে গেলে মোক্তার আমাকে ওই বাড়ীতে কেন গিয়েছিস বলে এলোপাথারী মারধর করলে আমার দাত ভেঙে যায়। আমি এ বিষয়ে হাসপাতালে চিকিৎসার পর থানায় অভিযোগ করেছি। এর আগেও মোক্তার আমাকে নানা ভাবে ক্ষতি ও হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করে। আমি তার সঠিক বিচার চাই৷

চিত্রকোট ৯ নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য শফিউদ্দিন খান মাসুম বলেন, সন্ধ্যায় লোকজন আমাকে বললো, মোক্তার মান্নানকে মারধর করেছে। আমি দেখি নাই।সিরাজদিখান প্রেসক্লাবের সভাপতি ইমতিয়াজ উদ্দিন বাবুল বলেন, বিষয়টি আমাকে মান্নান ফোনে জানিয়েছে। আমি এর বেশী কিছু বলতে পারবো না। এ বিষয়ে অভিযুক্ত মোঃ মোক্তার হোসেন কে বার বার মোবাইল করেও পাওয়া যায়নি ০১৯২৩৮৪৬৬৬৬,
সিরাজদিখান থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ফরিদ উদ্দিন বলেন, অভিযোগ পেয়েছি । তদন্ত করে অপরাধীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *