আদমদীঘিতে করোনা আক্রান্ত সন্দেহে স্বামীকে বাড়ীতে উঠতে বাধা

বগুড়া প্রতিনিধি।।
বগুড়া আদমদীঘির পল্লীতে করোনার উপসর্গ নিয়ে ঢাকা থেকে আসা কাবিল প্রমানিক (৩২) নামের এক কর্মজীবি স্বামীকে বাড়ীতে উঠতে বাধা দিয়েছে তার স্ত্রী । এঘটনায় উপজেলার সদর ইউনিয়নের কেশরতা গ্রামের ।
পেশায় মিস্ত্রি ওই ব্যাক্তি শর্দি কাশিতে অশুস্থ াবস্থায় সোমবার সকালে ঢাকা থেকে বাড়ীতে ফিরলে তার স্ত্রী প্রতিবেশীদের জানায়,করোনা ভ্ইারাসে আক্রান্ত হয়ে বাড়িতে ফিরেছে তার স্বামী । এমন খবরে গোটা গ্রামে আতংক ছড়িয়ে পড়ে।

পরে এ বিষয়টি জানার পর উপজেলা প্রশাসন ও স্বাস্থ্য বিভাগে শুরু হয় তোলপাড় । দ্রুত সেখানে ছুটে যায় উপজেলা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ.কে.এম আব্দুল্লাহ বিন রশিদ এবং স্বাস্থ্য বিভাগের স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ শহীদুল্লাহ দেওয়ানের নেতৃত্বে একটি মেডিকেল টিম।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার আদমদীঘি সদর ইউনিয়নের কেশরতা গ্রামের মৃত মোজাম্মেল প্রামানিকের ছেলে কাবিল প্রমানিক সোমবার সকাল ৬ টায় অশুস্থ্য অবস্থায় ঢাকা থেকে বাড়ীতে আসে। স্বামীর অশুস্থ্য অবস্থায় স্বামী বাড়ী ফেরায় আতংকিত হয়ে পরে তার স্ত্রী জেসমিন আক্তার । এসময় সে তার স্বামীকে বাড়ীতে
ঢুকতে বাধা প্রদান করে তাকে নিগৃহীত করতে চায়।

পরে সে প্রতিবেশীদের জানান, তার স্বামী ঢাকা থেকে বাড়িতে আসার পর থেকেকরোনা ভাইরাসের উপসর্গ জ্বর, সর্দি ও কাশি দেখা দিয়েছে । পরে এমন সংবাদ উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগে পৌছে। সংবাদটি জানার পর সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় একটি মেডিকেল টিম ওই গ্রামে গিয়ে অসুস্থ ব্যাক্তির সাথে সাক্ষাত করে ।

অসুস্থ রাজ মিস্ত্রি কাবিল প্রামানিক জানায়, তিনি ঢাকায় রাজ মিস্ত্রির কাজ করতেন। সেখানে থাকা অবস্থায় তাঁর শরীরে হালকা জ্বর ও সর্দি কাশি হয়। সে কারনে বাড়ীতে চলে আসেন তিনি ।

এ বিষয়ে ডাঃ শহীদুল্লাহ দেওয়ান জানান, বর্তমানে ওই ব্যক্তি সুস্থ থাকলেও তাকে সহ পরিবারের সকল সদস্য কে ১৪ দিন হোম কোয়ারান্টাইনে থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। একই সাথে ওই ব্যক্তির বাড়িতে লাল পতাকা টাঙিয়ে দেয়া হয়েছে। পরে প্রশাসন গ্রামের লোকজনকে মাক্স ব্যবহার করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।, ওই পরিবারের সদস্যদের ১৪ দিন খাবারের ব্যবস্থা করার জন্য সদর ইউপি চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান ও স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল বারীকে প্রশাসনের পক্ষে অনুরোধ জানানো হয়েছে বলে জানান ওই চিকিৎসক কর্মকর্তা ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *