বগুড়ায় বিদেশ ফেরতাদের তালিকা না থাকায় প্রকাশ্য জনসম্মুখে ঘুড়ে বেড়াচ্ছেন

বগুড়া প্রতিনিধি।।
সংশ্লিষ্ট কর্র্তৃপক্ষ এবং স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগ ও সিভিল সার্জন অফিসের অবহেলায় বগুড়ায় কোরানা আতংক ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে। গত দু’সপ্তাহে জেলার বিভিন্ন স্থানে ২শতাধিত বিদেশ প্রত্যাগতদের কোয়ারেন্টাইনে থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করা হলেও এর কোন সঠিক পরিসংখ্যান নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছেনা ।
গত এক সপ্তাহে শত শত দেশে ফেরা মানুষের সঠিক পরিসংখ্যান না থাকা এবং তাদের বহুজন শহরে বন্দরে আনাচে কানাচে জনসম্মুখে তথ্য গোপন করে প্রকাশ্য ঘুরে ফেরার ঘটনায় গোটা বগুড়া এখন কোরোনা আতংক ভর করতে শুরু করেছে।
অভিযোগ উঠেছে বিদেশ ফিতাদের তালিকার অভাব , সিভিল সার্জন অফিস ও স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগ এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অবহেলার কারনে বিদেশ ফিরতাদের চিহ্নিত করতে না পারায় বিদেশ ফিরতা অনেকেই বেপরোয়া ভাবে সরকারী আদেশ অমান্য করে অবাধে এবং প্রকাশ্য ঘুড়ে বেড়াচ্ছেন। বগুড়ায় গত ৩দিনে কমপক্ষে ৩টি এধরনরে ঘটনায় স্থানীয়দের মাঝে মি¯্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি এবং তীব্র ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয়দের অভিযোগের ভিত্তিতে শহরে কালিতলা এলাকায় অভিযান চালিয়েছে ভ্রাম্যমান আদালত। বগুড়া সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মুহাঃ আজিজুর রহমান গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারেন একেএম আব্দুর রশিদ (৭০) নামের সদ্য আমেরিকা ফেরত এক ব্যাক্তি গত ১৮মার্চ তারিখে ঢাকা হয়ে বগুড়ায় আসেন। পরে তিনি কোন প্রকার সরকারী আদেশ এবং মেডিকেল নিয়ম না মেনে অবাধে এবং প্রকাশ্য শহরময় ঘুড়ে বেড়াচ্ছিলেন ।
এমন তথ্যর ভিত্তিতে ভ্রাম্যমান আদালত শহরের কালিতলা এলাকার কাটনারপাড়া হটু মিয়া লেন এর আলোরমেলা স্কুল এলাকায় ওই ব্যাক্তির বাড়ীতে অভিযান চালান । আদালতের বিজ্ঞ বিচারক সেখানে গিয়ে দেখতে পান আমেরিকা থেকে আসা ব্যাক্তিটি শহরে গেছেন ব্যাক্তিগত কাজে। এসময় সেখানে শত শত এলাকাবাসী তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করে আদালতের বিজ্ঞ বিচারকের কাছে অভিযোগ করেন। পরে স্থানীয় কাউন্সিলর তরুন কুমার কবিরাজের মাধ্যমে আদালত তাকে বাড়ীতে আসতে বলেন। এর প্রায় ৩০মিঃ পর ওই ব্যাক্তি রিক্সাযোগ্য সেখানে সেখানে এলে আদালতের বিচারক তাকে চ্যালেঞ্জ করে একজন সচেতন ব্যাক্তি হয়ে তিনি কিভাবে সরকারী আদেশ না মেনে প্রকাশ্য এভাবে অবাধে চলাফেরা করছে মর্মে কঠোর ভাবে ভৎসনা করেন । এতে আমেরিকা ফেরত ওই ব্যাক্তি সরকারী ঘোষনা জানেন না মর্মে দেশবাসীর কাছে শর্তহীন এবং আন্তরিক ভাবে দুঃখ প্রকাশ করে প্রকাশ্য এবং লিখিত ভাবে ক্ষমা প্রার্থনা করলে আদালত তাকে কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ সহ ভবিষ্যতের জন্য সতর্ক করেন বিজ্ঞ আদালত।

এদিকে বগুড়ার ধুনটে সরকারি নির্দেশ অমান্য করায় বিপ্লব হোসেন (৩৪) নামে এক বিদেশ ফেরত এক যুকককে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। বিপ্লব হোসেন উপজেলার গোসাইবাড়ি ইউনিয়নের মবুয়াখালী গ্রামের আশরাফ আলীর ছেলে। সে বিদেশ দেশে ফিরে হোম কোয়ারেন্টিনে না থেকে বিভিন্ন এলাকায় ঘোরাফেরা করছিলো। বৃহস্পতিবার দুপুরে সংবাদ পেয়ে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট ও ধুনট উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা (ইউএনও) রাজিয়া সুলতানা তাকে এ জরিমানা করেন।
জানা যায়, বিপ্লব হোসেন দীর্ঘ ১০ বছর যাবত মালোয়েশিয়ার একটি কোম্পানীতে কর্মরত আছেন । গত ১৩ মার্চ মালোয়েশিয়া থেকে সে বাড়ি ফিরে আসে। করোনাভাইরাস সতর্কতায় তাকে নিজবাড়িতে ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার জন্য সরকারিভাবে নির্দেশ দেয়া হয়। কিন্তু সে ওই নির্দেশনা অমান্য করে বাড়ি ফিরে হাট-বাজার সহ আত্বীয় স্বজনদের বাড়িতে ঘোরাফেরা করে আসছিল।
ধুনট উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা রাজিয়া সুলতানা এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, করোনাভাইরাস সতর্কতায় বিদেশ ফেরৎ ব্যক্তিদের নিজ বাড়িতে ১৪ দিন হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার সরকারিভাবে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু বিল্পব হোসেন সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে বাহিরে ঘোরাফেরা করছি। তাই সংবাদ পেয়ে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে তাকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে এবং তার হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা নিশ্চিত করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *