সাতক্ষীরার তালার অগ্নিদগ্ধ গৃহবধূ রত্না অবশেষে না ফেরার দেশে

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি : সাতক্ষীরার তালার অগ্নিদগ্ধ গৃহবধূ ফারহানা আক্তার রত্না । দীর্ঘ ১৩ দিন ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে না ফেরার দেশে চলে গেলেন।

বুধবার (৪ মার্চ)রাতে ঢাকা মেডিকেল বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

মৃত্যু রত্না খুলনার পাইকগাছার মালোত গ্রামের রোকন সরদারের মেয়ে ও কুষ্টিয়ার দৌলতপুরের হাসিবুর রহমান সবুজের স্ত্রী। তারা তালা উপজেলার মোবারকপুর গ্রামের অসীম সাধুর বাড়িতে ভাড়া থাকতো।

এ ঘটনায় রত্নার বাবা রোকন সরদার তালা থানায় লিখিত অভিযোগ করলেও এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

রোকন সরদার জানান, তার মেয়ে ফারহানা আক্তারের সাথে ২০০৯ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর খুলনা জেলার ভরতভায়না গ্রামের সোহরাব হোসেনের ছেলে মিজানুর রহমানের সাথে বিয়ে হয়েছিল। প্রথম স্বামীর সাথে যৌতুক নিয়ে বিরোধ এর কারণে বনিবনা না হওয়ায় সেখান থেকে রত্না তালাক প্রাপ্ত হয়।

পরে কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর থানার মৃত আব্দুস সাত্তারের ছেলে হাসিবুর রহমানের সাথে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পরে তারা তালা ব্রিজ সংলগ্ন মোবারকপুরের অসীম সাধুর বাড়িতে ভাড়া থাকতো।

উভয়ে সুখে শান্তিতে বসবাস করা অবস্থায় গত ২১ ফেব্রুয়ারি রাত দেড়টার দিকে জামাই দোকানে মশার কয়েল আনতে গেলে আগে থেকে ওত পেতে থাকা দুর্বৃত্তরা ঘরের ভিতরে পেট্রোল জ্বালিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। এতে রত্নার সারা শরীর পুড়ে যায়। এসময় তার আত্মচিৎকারে বাড়ির মালিক ও মালিকের স্ত্রী মিলে তাকে আশংকাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে তালা উপজেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে অবস্থার অবনতি হওয়ায় খুলনায়, পরে ঢাকা মেডিকেল বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়।

তালা থানার অফিসার্স ইনচার্জ (তদন্ত) শেখ সেকেন্দার আলী বলেন, ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার করার চেষ্টা চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *