ঠাকুরগাঁওয়ে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতনের শিকার এক কৃষক !

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : জমি বিক্রি করে টাকা না দেয়ায় এক কৃষককে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন করেছে তার স্ত্রী ও সন্তানরা। আগুনে লোহ রড় গম করে তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে ঝলছে দিয়েছে তারা। এছাড়া লাঠির আঘাতে তার শরীরে রক্ত জমাট বেঁধে আছে। ঘটনাটি ঘটেছে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার রায়পুর ইউপির বাঁকশিরি গ্রামে ।

আহত ওই ব্যক্তির নাম আফজাল আলী মন্ডল (৪৫)। বর্তমানে তিনি ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

নির্যাতিত আফজাল অভিযোগ করে বলেন, স্ত্রী-সন্তানরা জমি বিক্রির টাকার জন্য তাকে চাপ দিতে থাকে ।এক পর্যায়ে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। খেতেও দিত না । গত বছর চৈত্রমাস বাড়ি ছাড়া হই । এক মাস হলো পরিবারের টানে বাড়ি ফিরি । তারপরও রক্ষা হয়নি । শ্যালক আরমান আলীর নির্দেশ আমার স্ত্রী আনোয়ারা, ছেলে আলমগীর ও মেয়ে আল্পনা বেশ কিছু দিন ধরে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে আসছে।

আফজালের ছোট ভাই আজগর আলী বলেন, গতমাসে লাঠি দিয়ে তার ভাই আঘাত করলে তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। চক্ষু লজ্জার ভয়ে এ সব ঘটনা তিনি এতদিন আড়াল করে রেখেছিলেন । রোববার বিকালে স্থানীয় বাজারে ওষুধ কিনতে গেলে একজন প্রতিবেশী তার শরীরের দাগগুলো দেখে সবাইকে জানায়। পরে তারা তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে।আফজাল বলেন, আমি ছেলে-মেয়ে স্ত্রীকে নিয়ে বাঁচতে চাই । কিন্তু ওরা আমাকে বাঁচতে দিতে চায়না ! এ বলে কেঁেদ দেন তিনি ।
রায়পুর ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম বলেন একমাস আগে এ নিয়ে শালিশ বৈঠক হয় । এরপর কি হয়েছে তা আমার জানা নেই । তবে আফজালের স্ত্রী আনোয়ারার অভিযোগ সে আয় রোজগার না করে অলস সময় কাটায় । এনিয়ে দুজনের বনাবনি হচিছল না ।

আফজালের শ্যালক আরমান, স্ত্রী আনোয়ারা ও মেয়ে আল্পনা এ বিষয়ে সাংবাদিকদের সাথে কোনো কথা বলতে রাজি হননি।

এ ব্যাপারে হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের চিকিৎসক শিহাব আহম্মেদ বলেন, আফজালের বুকে ও পিঠের বিভিন্ন স্থান আগুনে ঝলসে গেছে এবং শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতের কারণে রক্ত জমাট হয়ে গেছে। তার চিকিৎসা চলছে।

ঠাকুরগাঁও সদর থানার ওসি তানভিরুল ইসলাম বলেন, এ বিষয়ে কেউ কোনো অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *