বগুড়ার গাবতলীতে অব্যাহত ভাবে সন্ত্রাস ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম বৃদ্ধি পেয়েছে

বগুড়া প্রতিনিধি।।
বগুড়ার গাবতলীতে অব্যাহত ভাবে সন্ত্রাস ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম বৃদ্ধি পেয়েছে। উপজেলার বিভিন্ন স্থানে দিনে দুপুরে হরহামেশাই এবং একের পর এক অপরাধ কর্মকান্ড ঘটে চলেছে।
অধিকাংশ ক্ষেত্রে প্রভাবশালী মহলের মদদে দখলবাজী ,হামলা,ভাংচুর লুটপাট সহ সহিংস ঘটনা ঘটে চলেছে। অভিযোগ রেেয়ছে মামলা হবার পরও অধিকাংশ ক্ষেত্রে প্রভাবশালী হবার কারনে মূল আসামীরা ধরা ছোয়ার বাহিরে থেকে যাওয়ায় দিন দিন এই উপজেলায় আইনশৃংখলা পরিস্থিতি অবনতি হবার আশংকা করা হচ্ছে ।
তারই ধারাবাহিকতায় আবারো দিনে দুপুরে সিনেমা স্টাইলে বস্বত বাড়ী ঘড়ে হামলা চালিয়ে ভাংচুর, লুটপাট ও মারপিট করে একটি অসহায় পরিবারকে উচ্ছেদ করেছে প্রতিপক্ষ সন্ত্রাসীরা।
উপজেলার রামেশ^রপুর উত্তরপাড়া গ্রামে গত ২৯ডিসেম্বর রবিবার এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর স্থানীয় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ২ব্যক্তিকে গ্রেফতার করলেও মূল আসামীরা রয়ে গেছে ধারা ছোঁয়ার বাহিরে ,এমন অভিযোগ এলাকাবাসীর । এ ঘটনায় ভুক্তভোগী জনৈক খাজা মিয়া বাদী হয়ে রোববার রাতে এলাকার প্রভাবশারী শফিকুল ইসলামকে অভিযুক্ত করে এক নং আসামী হিসেবে এজাহার নামিয় ১৪জনের নাম উল্লেখ করে একটি মামলা করেন। আরো ২৫/৩০জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা এজাহার ভুক্ত করা হয় ।
ওই ঘটনায় আহতরা হলেন আঃ খালেক (৫৫), তার স্ত্রী সালেহা বেগম (৪৫) ও ছেলের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী রিনা খাতুন (২২)সহ আরো কমপক্ষে ২জন।
খবর পেয়ে গাবতলী থানা পুলিশের একটি দল থানার এসআই ঘটনাস্থলে পৌছে সন্দেহভাজন ২জনকে গ্রেফতার করেন। গ্রেফতারকৃতরা হলো রামেশ^রপুর উত্তরপাড়া গ্রামের আঃ জলিলের ছেলে শাহাদৎ হোসেন (২০) ও আবু তাহের (৩৩)। গতকাল সোমবার গ্রেফতারকৃতদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।
দেরীতে প্রাপ্ত অভিযোগে জানা গেছে, উপজেলার রামেশ^রপুর উত্তরপাড়া গ্রামে মৃত চান্দু প্রামানিকের ছেলে আব্দুস সামাদ, মৃত রিয়াজ উদ্দিনের ছেলে শফিকুল ও খলিল দীর্ঘদিন আগে থেকে অসহায় আব্দুল খালেকের বসতবাড়ীর জায়গা পাবে বলে দাবী করে আসছিল।
এরই জের ধরে গত ২৯ডিসেম্বর রবিবার এক নং আসামী শফিকুল, খলিল ও সামাদের নেতৃত্বে ৫০/৬০জন সন্ত্রাসী প্রকাশ্য দিনের বেলায় লাঠি-সোটা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে এলাকার আব্দুল খালেকের বাড়িতে হামলা চালিয়ে সেখানে সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। তারা এসময় বাড়ী গড়ে চড়াও হয়ে ভাংচুর, লুটপাট ও পরিবারের সদস্য সদস্যাদের বেধড়ক ভাবে মারপিট করে তাদের বাড়ীঘর মাটিতে মিসে দিয়ে তাদের সমপূর্ন ভাবে উচ্ছেদ করে দেয়।
এলাকাবাসী জানায় ওই অসহায় পরিবারটি বর্তমানে তীব্র শীতের মধ্যে খোলা আকাশের নিচে মানবেতর ভাবে বসবাস করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *