নতুন সংযোগ প্রদানে অক্ষমতা ! ১৬০ টি সংযোগ নিয়ে নাজুক অবস্থায় চলছে শেরপুর টেলিফোন অফিস

জিয়াউদ্দিনলিটন:  পৌরসভার ড্রেননির্মান ও হাইওয়ে রাস্তা মেরামতের কাজ করতে গিয়ে টেলিফোন লাইন কর্তন করার কারনে বগুড়ার শেরপুর টেলিফোন এক্সচেঞ্জ অফিস নতুন সংযোগ প্রদানের ক্ষমতা হারিয়েছে প্রায় এক যুগ আগেই। এ নিয়ে স্থানীয়ভাবে কোন তোর জোর না থাকায় নাজুক অবস্থায় চলছে শেরপুর টেলিফোনঅফিস।
জানাগেছে, শেরপুরউপজেলার সরকারী অফিস ও ব্যাংক সব মিলে প্রায় ১৬০ টি টেলিফোন সংযোগ রয়েছে। এগুলোকেই সঠিক ভাবে সাপোর্ট দিতে পারছেনা শেরপুর টেলিফোন অফিস।কারন হিসেবে তারা বলছে-নতুন গ্রাহকের সংখ্যা দিনে দিনে কমে যাচ্ছে। সেই সাথে পৌরসভার কর্তৃক শহরের বিভিন্ন রাস্তা মেরামত ও ড্রেননিমানর্ কাজ করতেগিয়ে টেলিফোন কেবল(তার)কর্তৃন করে আর মেরামত করে নাই। এমনকি টেলিফোন অফিসে না জানিয়েই ড্রেননির্মান কাজ করতে গিয়ে অনেক সংযোগ কেবল(তার)কাটাপড়েছে। সব মিলিয়েশেরপুর টেলিফোন অফিস টির কার্যক্রম চলছে নাজুক অবস্থায়।
এ বিষয়ে আমরা কথা বলেছিলাম অফিসটির দায়িত্বে থাকা মিজানুর রহমান ও ফরিদুল ইসলামের সাথে-তারা বলেন নতুন সংযোগের আবেদন খুবই কম। কিছুঅফিস ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আবেদন করলেও আমরা সংযোগ দিতে পারছিনা। শুনেছি প্রায় এক যুগ আগে শেরপুর থেকে মির্জাপুর পর্যন্ত মহাসড়কের পাশ্বে ড্রেননির্মানের সময় আমাদের টেলিফোন কেবল কেটে যায় তখন থেকে মির্জাপুর শেরুয়া এলাকায় সংযোগ একেবারেই বন্ধ হয়ে যায়।এরপরে আর মেরামত করা হয়নি।এছাড়াও পৌর এলাকায় মোট সংযোগ রয়েছে ১৬০টি। যার অধিকাংশই সরকারী বিভিন্ন অফিস। পৌরশহরের ড্রেননির্মানের সময় কেবল কাটা পড়ায় এগুলোকে সঠিক ভাবে সাপোর্ট দেওয়া যাচ্ছে না।এবিষয়ে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের সাথে কথা হলেও তেমন কাজে আসে নাই। এ বিষয়ে বগুড়া বিটিসিএল এর বিভাগীয় প্রধানের সাথে কথা বলার চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *