ঠাকুরগাঁওয়ে ধর্ষণের ঘটনা মাফশাপ-ধর্ষিতার পরিবারকে ভিটে ছাড়ার হুমকি

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার দেবীপুর ইউনিয়নের মূজাবন্নী কুমারপাড়া গ্রামের নিশি পাল (৩৫) এর বিরুদ্ধে এক গৃহবধুকে ধর্ষনের অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি ধামাচাপা দিতে স্থানীয় ইউপি চেয়াম্যানের উপস্থিতিতে ধর্ষণের বিচার করেন মাফশাপ। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

ধর্ষিতা ওই নারী অভিযোগ করে বলেন প্রতিবেশী নিশি পাল গত ২২ জানুয়ারী রাত আনুমানিক সাড়ে ৯টার দিকে তার প্রতিবেশী কয়েজন নারী আগুন তাপানোর পরে সকলে নিজ বাড়িতে চলে যায়। পরে বিছানায় শোবার পূর্বে প্রসাব করতে গেলে উৎ পেতে থাকা প্রতিবেশী নিশি পাল আমাকে মুখ চেপে ধরে ফেলে আমার ইজ্জত নেয়। এই ঘটনা কাউকে না জানাতে আমার স্বামীকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। পরদিন অসুস্থ হয়ে গেলে ধর্ষিত ওই নারী পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নেন।

ধর্ষিতা ওই নারীর স্বামী বলেন আমার স্ত্রী এ ঘটনাটি প্রথম অবস্থায় ভয়ে বলতে চায়নি। পরে বিষয়টি আমাকে খুলে বলে। চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে বিষয়টি মিমাংসা করা হয়। নিশি পালের সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করেও পাওয়া যায়নি।
একটি সূত্র জানায় ওই নারীর পরিবারটি দরিদ্র অসহায়। স্থানীয় মাতব্বর রাজেন্দ্র নাথ রায়, পল্লী চিকিৎসক শুশাংঙ্কর এই ঘটনাকে ধামাচাপা দিতে পরিবারটিকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি প্রদর্শণ করে আসছে। রাজেন্দ্র নাথ রায় ওই নারীর স্বামীকে হুমকি দেয় বেশী বাড়াবাড়ি করা হলে ভিটে ছাড়া করা হবে।

সূত্রটি আরো জানায় গত ৩১ জানুয়ারী স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে সালিশ মিমাংসা হয়, নাম প্রকাশে অনিচ্ছিুক ওই ব্যক্তি বলেন এধরনের সালিশ মিমাংসা আমার জীবনে দেখিনি। ধর্ষণের ঘটনা কি কখনও মাফশাপ হয় ?
ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন ওই সালিশ মিমাংসায় আমি ছিলাম না, আমি শুনে চলে এসেছি।
ঠাকুরগাঁও থানার ওসি তানভিরুল ইসলাম বলেন বিষয়টি শুনেছি। তবে কেউ অভিযোগ দেয়নি, এ ব্যাপারে অভিযোগ পেলে প্রয়োজনিয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *