ঠাকুরগাঁওয়ে স্বপ্নের ঠিকানা পেলেন ৭৯২ জন গৃহহীন

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি ॥ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ছিল দেশের কোনো মানুষ আশ্রয়হীন থাকবে না। পিতার সেই স্বপ্ন পূরণে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ঠাকুরগাঁওয়ে ৭’শত ৯২ জন গৃহহীন-ভূমিহীনকে ‘স্বপ্নের ঠিকানা’ উপহার দিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শনিবার (২৩ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০টায় সারাদেশের সাথে একই সময়ে ঠাকুরগাঁওয়ে ৫টি উপজেলায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই কর্মসূচীর উদ্বোধন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক ড. কেএম কামরুজ্জামান সেলিম, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ সাদেক কুরাইশী, উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামনু, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক দীপক কুমার প্রমুখ।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়া মুজিববর্ষ উপলক্ষে ঠাকুরগাঁওয়ে প্রথম ধাপে ৭’শ ৯২ টি পরিবারকে ঘর বুঝিয়ে দেওয়া হবে। যার মধ্যে সদর উপজেলায় ৩৩৪টি, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় ৬৫টি, রাণীশংকৈল উপজেলায় ৭০টি, হরিপুর উপজেলা ২৩৭টি এবং পীরগঞ্জ উপজেলায় ৮৬টি। দ্বিতীয় ধাপে ১ হাজার ২’শ ১৭ সতের জন ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারকে গৃহ উপহার দেয়া হবে।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালের ২০ ফ্রেবুয়ারি নোয়াখালী জেলার বর্তমানে লক্ষ্মীপুরের চরপোড়াগাছ গ্রাম পরিদর্শন করেন। সেখানে তিনি গৃহহীন মানুষের জন্য গৃহ নির্মাণের নির্দেশ দেন। তারই নির্দেশে স্বাধীন বাংলাদেশে প্রথম শুরু হয় গৃহহীন পুনর্বাসন কার্যক্রম। পরে ১৯৭২ সালের ৩ জুন বাংলাদেশ জাতীয় সমবায় ইউনিয়ন আয়োজিত সমবায় সম্মেলনের বক্তব্যে অঙ্গীকার করেছিলেন, ‘আমার দেশের প্রতিটি মানুষ খাদ্য পাবে, আশ্রয় পাবে, শিক্ষা পাবে, উন্নত জীবনের অধিকারী হবে। এই হচ্ছে আমার স্বপ্ন।’

স্বপ্ন পূরণের পথে জাতির পিতার অগ্রযাত্রা থমকে যায় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের কালো রাতে। তার সেই স্বপ্ন পূরণকেই ব্রত হিসেবে নিয়ে কাজ করে চলেছেন তারই কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ১৯৯৬ সালে তার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে জাতির পিতার অসমাপ্ত জনবান্ধব ও উন্নয়নমূলক কার্যক্রমগুলো পুরনায় চালু করেন। ১৯৯৭ সালের ২০ মে কক্সবাজার জেলার ঘূর্ণিঝড়ে আক্রান্ত মানুষদের দুর্দশা দেখতে কক্সবাজার পরিদর্শন করেন এবং গৃহহীন মানুষদের পুনর্বাসনের নির্দেশ দেন। তার নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে শুরু হয় আশ্রয়ণ প্রকল্প। সেই আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় ১৯৯৭ থেকে ২০২০ পর্যন্ত ৩ লাখ ২০ হাজার ৫২টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে পুনর্বাসন করা হয়েছে।

পরবর্তী মেয়াদে ক্ষমতায় না আসতে পারলেও ২০০৯ সালে দ্বিতীয় দফায় প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নিয়েই ফের শুরু করে সেই কার্যক্রম। সবশেষ জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনের ঐতিহাসিক উপলক্ষ সামনে রেখে সরকার ঘোষণা করে ‘মুজিববর্ষ’। এই মুজিববর্ষেই দেশের গৃহহীন মানুষদের জন্য আশ্রয়ের ব্যবস্থা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন শেখ হাসিনা। সে অনুযায়ী প্রকল্প হাতে নেয় সরকার। তারই প্রথম ধাপে ৬৬ হাজারেরও বেশি পরিবার বুঝে পাচ্ছে আশ্রয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *