শেরপুরে বিএনপি বিদ্রোহী প্রার্থী নির্বাচিত আ.লীগ-বিএনপি’র প্রার্থী ধরাশায়ী

স্টাফ রিপোর্টার: বগুড়ার শেরপুর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপির বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী জানে আলম খোকা(জগ) প্রতিক নিয়ে ৮ হাজার ৭৬৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন তার নিকটতম প্রতিদ্ব›িদ্ব আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনিত প্রার্থী আব্দুস প্রতীক নৌকা পেয়েছেন ৪ হাজার ৬৮১ ভোট।

এ ছাড়া বিএনপির দলীয় মনোনিত প্রার্থী স্বাধীন কুমার কুÐু ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪ হাজার ১৪৪ ভোট পেয়ে ধরাশায়ী হয়েছে। এছাড়াও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের দলীয় মনোনীত প্রার্থী এমরান কামাল হাতপাখা প্রতিকে ৫৫৬ ভোট পেয়েছেন। ১৬ জানুয়ারী শনিবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ১১টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণের পর গণনা শেষে বেসরকারি ফলাফলে এই তথ্য জানা যায়।

এ পৌরসভায় ২৩হাজার ৭শ ৫৪ জন ভোটারের মধ্যে ১৮ হাজার ২শ২৫জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। বাতিল হয় ৩৩৮ ভোট। ভোট প্রদানের শতকরা হার ৭৬.৬৯ শতাংশ।

এ ছাড়া কাউন্সিলর পদে বিজয়ী হয়েছেন ১ নম্বর ওয়ার্ডে শুভ ইমরান(প্রতিক উটপাখি), ২ নম্বর ওয়ার্ডে বদরুল ইসলাম পোদ্দার ববি(প্রতিক উটপাখি),৩ নম্বর ওয়ার্ডে নিমাই ঘোষ(প্রতিক পাঞ্জাবী), ৪ নম্বর ওয়ার্ডে ফারুক ফয়সাল সোহাগ(প্রতিক উটপাখি), ৫ নম্বর ওয়ার্ডে চন্দন কুমার দাস রিংকু((প্রতিক পানির বোতল), ৬ নম্বর ওয়ার্ডে নাজমুল আলম খোকন(প্রতিক উটপাখি), ৭ নম্বর ওয়ার্ডে জাকারিয়া মাসুদ(প্রতিক টেবিল ল্যাম্প), ৮ নম্বরে সৌমেন্দ্রনাথ ঠাকুর শ্যাম(প্রতিক বোতল), ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডে ফিরোজ আহমেদ জুয়েল(প্রতিক পানি বোতল)। এদিকে সংরক্ষিত তিনটি মহিলা কাউন্সিলর পদে জয়ী হয়েছেন যথাক্রমে করুনা রানী ঘোষ(চশমা প্রতীক), মমতাজ বেগম রুবি( টেলিফোন প্রতিক) ও শারমিন আক্তার(আনারস প্রতীক)।

এ পৌরসভার ১১টি ভোটকেন্দ্রে ১১ জন নির্বাহি ম্যাজিস্ট্রেট ও ১১জন প্রিজাইডিং অফিসার, ৮২ জন সহকারি প্রিজাইডিং অফিসার ও ১৬৪ জন পোলিং অফিসার, র‌্যাব, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশসহ পর্যাপ্ত সংখ্যক নিরাপত্তা বাহিনী মোতায়েন ছিল উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও সহকারি রির্টানিং কর্মকর্তা মোছাঃ আছিয়া খাতুন জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *