আটোয়ারীতে মাদক বিরোধীদের লোহার রড দিয়ে মারপিট

পঞ্চগড় প্রতিনিধি :
পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলার রানীগঞ্জ এলাকায় মাদক বিরোধীদের লোহর রড দিয়ে মোরপিট করে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে। গত বুধবার বাজারের একটি চায়ের দোকানে মাদকবিরোধী কয়েকজনকে মারধর করে মাদক ব্যবসায়িরা। এ ঘটনায় তেরজনকে আসামী করে আটোয়ারী থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এরা সকলেই মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে। অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে রাণীগঞ্জ এলাকাটি মাদকের হাট বলে পরিচিত। ওই এলাকায় গত একবছর ধরে দুহসুহ গ্রামের মজিবর রহমানের ছেলে বাবুল খানের (৫৬) নেতৃত্বে স্থানীয় সচেতন নাগরিকরা মাদক বিরোধি সচেতনতা সৃষ্টিতে বিভিন্ন সামাজিক কাজ করছেন। মাদক ব্যবসা প্রতিরোধ করার জন্য তারা নিয়মিত পুলিশকে সহযোগিতা করে আসছেন। এর আগে বাবুল খান সহ স্থানীয়দের তথ্যের ভিত্তিতে কয়েকজন মাদক ব্যবসায়িকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। মাদক বিরোধীদের এমন নানা উদ্যোগে মাদক ব্যবসা প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। এসব কারণে মাদক ব্যবসায়িরা অনেক দিন থেকেই তাদের হুমকি দিয়ে আসছিল। বুধবার বিকেলে ১২/১৩ জন মাদকসেবি ও ব্যাবসায়ি কালুমিঞা নামের এক মাদক বিরোধী যুবককে একটি চালকল মাঠে নিয়ে গিয়ে প্রথমে আটকে রেখে মারধর করে। পরে তারা বাজারে গিয়ে মাদক বিরোধী নেতা বাবুল খানকে লোহার রড ও লাঠি দিয়ে মারধর শুরু করে। এসময় তাকে হত্যার হুমকি দেয় আসামীরা। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে বোদা উপজেলা স্বাস্থ্য কম্পেøক্সে ভর্তি করে। বৃহস্পতিবার রাতে তিনি আটোয়ারী থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযুক্ত আসামীরা হলেন রাণীগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম, তার তিন ছেলে সফিকুল ইসলাম সফি, সাগর আলী,হাফিজুল ইসলাম। অন্য আসামীরা হলেন ঐ এলাকার মৃত দাণেশ আলীর দুই পুত্র হায়দার আলী এবং নজরুল ইসলাম, রহিম কসাইয়ের তিন ছেলে মানিক,আনারুল, মফিজুল ইসলাম মুফু,আবু হানিফ মুন্সির দুই ছেলে কাশেম ও কাদের,কালু খানের ছেলে সহিত খান,বেলাল হোসেনের ছেলে ফরিদুল ইসলাম এবং ঠাকুরগাঁও জেলার রুহিয়া উপজেলার হাসান আলীর ছেলে আশরাফুল ইসলাম। এ ব্যাপারে আটোয়ারী থানার এস আই বুলবুল ইসলাম মুঠোফোনে জানান রাণীগঞ্জ এলাকার বাবুল খান ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ সব সময় মাদক ব্যবসায়ী এবং মাদক সেবীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার। এ ব্যাপারে তিনি সবসময় পুলিশ কে সহযোগিতা করে আসছেন। তাকে মারধর করার বিষয়টি দু:ক্ষজনক। আটোয়ারী থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ইজারউদ্দিন জানান অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগটি মামলা আকারে গ্রহণের প্রক্রিয়া চলছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *