শেরপুরে শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মামলা, বিক্ষোভ মিছিল

স্টাফ রিপোর্টার:
বগুড়ার শেরপুরের বাস-মিনিবাস কোচ ও মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিযনের নির্বাচনে সিলেকশন না ইলেকশন এই নিয়ে আওয়ামীলীগের দু’ গ্রুপের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ ঘটনায় নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য ও আওয়ামীলীগ নেতা শেরপুর পৌর কাউন্সিলর নাজমুল আলম খোকনকে লাঞ্চিত করায় শেরপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ওই রাতেই উপজেলা শ্রমিক লীগের আহবায়ক কামাল হোসেনের বাড়িতে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনার প্রতিবাদে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে শহরের বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এক গ্রুপের বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে।
জানা যায়, শেরপুর পৌর শহরের বাসস্ট্যান্ড এলাকায় বাস-মিনিবাস কোচ ও মাইক্রোবাস শ্রমিক ইউনিযনের কার্যালয়ে আসন্ন সাধারণ নির্বাচন নিয়ে গত ১৩ অক্টোবর বিকালে নির্বাচন পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান আনসার আলীর সভাপতিত্বে নির্বাচনী প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই প্রস্তুতি সভায় পরিচালনা কমিটির ১ ডজন সদস্য উপস্থিত ছিলেন। বেশীর ভাগ সদস্য সরাসরি ভোটের পক্ষে মতামত দিলেও সংসদ সদস্যর অনুসারিরা সিলেকশনের পক্ষে অবস্থান নেয়। এ নিয়ে সংসদ সদস্য ও  শেরপুর উপজেলা চেয়ারম্যান ও বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতির অনুসারিদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এরই একপর্যায় জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতির অনুসারি পৌর কাউন্সিলর ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য নাজমুল আলম খোকন শ্রমিক ইউনিয়নের কার্যালয় থেকে বাড়িতে যাওয়ার জন্য বের হলে সংসদ সদস্যের অনুসারি উপজেলা শ্রমিক লীগের আহবায়ক কামাল হোসেনের লোকজন তার পথরোধ করে লাঞ্চিত করাসহ নানা ভয়ভীতি দেখিয়ে চলে যায়। এ ঘটনায় ওই রাতেই খোকন বাদি হয়ে শেরপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উপজেলা শ্রমিক লীগের আহবায়ক ও শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী কামাল হোসেনের বাড়িতে ওইদিন রাত সাড়ে ৩টার দিকে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এ ঘটনায় কামাল হোসেন বাদি হয়ে গত বুধবার রাতে শেরপুর থানায় ১০ জনের বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতারের দাবিতে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকাল ৫ টার দিকে শেরপুর শহরের বাসস্ট্যান্ড এলাকায় সংসদ সদস্যের অনুসারিরা বিক্ষোভ মিছিল করে। এই নিয়ে একই দলের দু’গ্রুপের মধ্যে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে। দু’গ্রুপের যাতাকলে পড়ে বলির পাঠায় পরিনত হয়েছে শেরপুর উপজেলা বাস-মিনিবাস ও মাইক্রোবাস পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন।
এ ব্যাপারে উপজেলা শ্রমিক লীগের আহবায়ক ও শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী কামাল হোসেন বলেন, আমিও স্বচ্ছ নির্বাচনের পক্ষে এবং অবৈধ ভোটারদের বাদ না দিয়ে নির্বাচন করার পায়তারা করায় তার প্রতিবাদ করার কারণে অপরপক্ষের লোকজন আমার বাড়িতে ককটেল হামলা করেছে।
এ প্রসঙ্গে পৌর কাউন্সিলর ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য নাজমুল আলম খোকন বলেন, নির্বাচন পরিচালনা কমিটি ভোটের মাধ্যমে নির্বাচন সম্পর্ণ করার পক্ষে মতামত পোষন করে কিন্তু উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য আহসান হাবীব আম্বিয়া সিলেকশনের পক্ষে অবস্থান নেওয়ায় আমি তার প্রতিবাদ করায় তারা আমাকে লাঞ্চিত করে।
এ ব্যাপারে শেরপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ বলেন, উভয় পক্ষের অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *