শেরপুরে দোয়ালসাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির স্বাক্ষর জালিয়াতির অভিযোগ !

শেরপুর(বগুড়া)প্রতিনিধি:
বগুড়ার শেরপুরে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির ৭ সদস্যের স্বাক্ষর জাল করে সভাপতি
নির্বাচিত করে ওই সভাপতি দিয়ে আবার হাইকোর্টে বিচারাধীন মামলার
তথ্য গোপন করে সহকারি প্রধান শিক্ষক নিয়োগের অপচেষ্টার অভিযোগ
উঠেছে দোয়ালসাড়া মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে।
অপরদিকে স্বাক্ষর জালিয়াতি করে সভাপতি নির্বাচিত করা, হাইকোর্টে
সভাপতি সভাপতি বিষয়ে মামলা বিচারাধীন থাকায় মামলা নিষ্পত্তি না
হওয়া পর্যন্ত নিয়োগ প্রক্রিয়া স্থগিত রাখতে লিখিত অভিযোগ দেয়া
হয়েছে জেলা শিক্ষা অফিসার বরাবরে।
প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, ম্যানেজিং কমিটির ৭ সদস্যের স্বাক্ষর জাল করে
সভাপতি পদে অনিময়ের অভিযোগের প্রেক্ষিতে বগুড়ার অতিরিক্ত জেলা
প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) কে সরেজমিনের তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয়
ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশ দিয়েছেন শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান। এই সকল
অভিযোগ হাইকোর্টে মামলা চলমান অবস্থার মধ্যেই স্কুলের সহকারি প্রধান
শিক্ষক নিয়োগের যাবতীয় কার্যক্রম সম্পন্ন করেছেন প্রধান শিক্ষক নুর
মোহাম্মদ। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।
জানা যায়, শেরপুর উপজেলার দোয়ালসাড়া মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে সদ্য
যোগদানকৃত প্রধান শিক্ষক নুর মোহাম্মদ ম্যানেজিং কমিটির শুন্য
সভাপতি পদে মনোনয়নের জন্য শিক্ষাবোর্ডের কাছে আবেদনের প্রেক্ষিতে
বাতিল হওয়া সভাপতি পদ পুনঃগঠনের লক্ষে শিক্ষা বোর্ড একটি চিঠি দেয়
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাসহ সংশ্লিদের কাছে। এর প্রেক্ষিতে ওই
প্রধান শিক্ষক তার মনোনীত ব্যক্তিকে সভাপতি বানাতে বিদ্যালয়ের
ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের নিয়ে কোন মিটিং না করে সদস্যদের স্বাক্ষর
জাল করেন। পরে প্রধান শিক্ষক গত ৯ আগষ্ট ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের
জাল স্বাক্ষরিত আবেদনসহ ভূয়া রেজুলেশন দিয়ে শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান
বরাবর সভাপতি মনোনয়নের আবেদন করেন। একদিনের ব্যবধানে ওই বিদ্যালয়ের
ম্যানেজিং কমিটির শুন্য সভাপতি পদে শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যানের
আদেশক্রমে বিদ্যালয় পরিদর্শক ১০ আগস্ট (স্মারক ৩/এস/৪৭/৫৭৯)
সহিদুজ্জামানকে ম্যানেজিং কমিটির মেয়াদপূর্তি পর্যন্ত সভাপতি পদে
নিয়োগ দেন।
বিযয়টি প্রকাশ হলে ওই দিনই (১০ আগস্ট) ওই বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং
কমিটির ৭জন সদস্য তাদের প্রকৃত স্বাক্ষর দিয়ে শিক্ষাবোর্ডের
 
চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিদের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এর
প্রেক্ষিতে রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক (৩/এস/৪৭/৫৭৮নং
স্মারকে) সভাপতি পদে অনিময়ের অভিযোগ সরেজমিনে তদন্ত পূর্বক
প্রতিবেদন পাঠানোর জন্য বগুড়া অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও
আইসিটি) কে চিঠি দিয়েছেন। এমতবস্থায় প্রধান শিক্ষক গোপনে
সহকারি প্রধান শিক্ষক নিয়োগের জন্য চেষ্টা চালালে ম্যানেজিং কমিটির
সদস্য জেলা শিক্ষা অফিসার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন।
তিনি বলেন এ বিষয়ে হাইকোর্টে মামলা চলমান রয়েছে (রিট পিটিশন নং
১০৭০৩/১৯) এবং জালিয়াতি করে ভুয়া স্বাক্ষরে সভাপতি নির্বাচিত করা
হয়েছে সে বিষয়েও অভিযোগটি তদন্তাধীন রয়েছে এমতবস্থায় কি করে
নিয়োগ প্রক্রিয়া হয়। তাই নিয়োগ প্রক্রিয়া স্থগিত চেয়ে শিক্ষা
অফিসার বরাবরআবেদন করা হয়েছে। সভাপতি নির্বাচনে প্রিজাইটিং
অফিসার ও ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের নিয়ে মিটিং করা হয়েছে কিনা
জানতে চাইলে প্রধান শিক্ষক নুর মোহাম্মদ আলী এসব বিষয়ে
সাংবাদিকদের সাথে কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন।
এ প্রসঙ্গে শেরপুমর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. নজমুল হক
জানান, উপজেলার দোয়ালসাড়া মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির
শুন্য সভাপতি নির্বাচন সংক্রান্ত একটি চিঠি রাজশাহী শিক্ষাবোর্ড
দিয়েছে।
সেখানে কমিটির সংখ্যাগরিষ্ট মতে সভাপতি নির্বাচন করা যাবে। কিন্তু
গোপনে স্বাক্ষর জাল করা হয়েছে মর্মে আমার নিকট অভিযোগ এসেছে।
তাছাড়া ডিজির প্রতিনিধি দেয়ার আগে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আমার
কোন মতামত জানতে চাননি। এখন যেহেতু মামলা ও অভিযোগের বিষয়ে
প্রধান শিক্ষক জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার নিকট তথ্য গোপন করেছেন এখন
তিনি প্রধান শিক্ষককে শোকজ নোটিশ ও ডিজির প্রতিনিধিকে বাতিল
করতে পারেন।
এ ব্যাপারে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা হযরত আলী প্রতিবেদককে জানান, মামলা
ও অভিযোগ থাকাকালিন সময়ে কোন নিয়োগ হওয়ার কথা নয়। কিন্তু তারা
আমার নিকট মামলা ও অভিযোগের বিষয়টি গোপন করে ডিজির
প্রতিনিধি নিয়েছেন। বিষয়টি আমার অজান্তে হয়েছে। আমি বিষয়টি
নিয়ে প্রধান শিক্ষককে শোকজ করবো।
আবু বকর সিদ্দিক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *