ঢাকা ১১:৫৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
বগুড়ার সান্তাহারে ৭২ হাজার টাকার জাল নোটসহ একজন গ্রেপ্তার জেলা যুবলীগের আয়োজনে ইফতার বিতরণ আদমদীঘিতে স্বামী স্ত্রীকে হত্যার উদ্দেশ্যে মারপিট মামলায় আরো দুইজন গ্রেফতার আদমদীঘিতে ট্রাকের ধাক্কায় একজন নিহত সিরাজদিখানে স্মার্ট বাংলাদেশ বাস্তবায়নে শিক্ষকদের করণীয় শীর্ষক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ধুনট থিয়েটারের আয়োজনে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত বগুড়ায় ঔষধ বাজারে সয়লাব বিক্রি নিষিদ্ধ ফিজিশিয়ান স্যাম্পলে সিরাজগঞ্জে বিশ্ব নাট্য দিবস পালিত মনন সাহিত্য সংগঠনের পাক্ষিক অধিবেশন এবং ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত বগুড়ায় সিএনজি চালিত গাড়ির সিলিন্ডার রি-টেস্টিং শতভাগ নিশ্চিত করা সময়েরদাবী গোমস্তাপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপিত নওগাঁয় সর্প দংশনে এক শিশুর মৃত্যু ( প্রতীকি ছবি) বগুড়ায় ধর্ষণের ঘটনা ধামা চাপা দিতে তামিমকে হত্যা করা হয়েছিলো বগুড়ায় তুচ্ছ ঘটনায় একজন ছুরিকাঘাত বাজার এলাকায় উত্তেজনা হলে ইউএনও ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এসে পরিস্থিতি শান্ত করেন। নওগাঁয় প্রভাবশাী ক্ষমতাবলে দীর্ঘ ৩ মাস ধরে গৃহবন্দী পরিবার নওগাঁয় ভূমি অফিসে অভিযান দালাল চক্রের সদস্যকে অর্থদণ্ড নওগাঁর বিভিন্ন দোকানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান ব্যবসায়ীকে জরিমানা বগুড়ায় ট্রাক ও অটোরিক্সার মুখোমুখি সংঘর্ষে একই পরিবারের ৩ জনসহ নিহত ৪ আহত ২ আদমদীঘিতে শ্বাশুড়ীকে খুনের মামলায় জামাই প্রেফতার নওগাঁয় মাদক ও অসামাজিক কাজ বন্ধের মানববন্ধন টাঙ্গাইলের মধুপুরে কবর থেকে ৫টি কঙ্কাল চুরি

বিলুপ্তির পথে হারিয়ে যাচ্ছে ফলদ ও ভেজষ গুণ সম্পন্ন কালো জাম

আদমদিঘী (বগুড়া) প্রতিনিধি :
  • আপডেট সময় : ০১:১০:১২ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০২৪ ৪৫ বার পড়া হয়েছে

নির্বিচারে বৃক্ষ নিধনের ফলে হারিয়ে যাচ্ছে দেশি ফল কালো জাম। এই ফল এখন চলে গেছে দামি ফলের তালিকায়। এক সময় প্রচুর জাম গাছ চোখে পড়লেও এখন তেমন দেখা যায় না। অত্যন্ত ঔষধি গুণ সম্পন্ন পাকা জামের মধুর রসে এখন আর মুখ আগের মতো রঙিন হয় না। জাম গাছ ২০-২৫ মিটার পর্যন্ত উঁচু হয়। এটি বৃক্ষ জাতীয় উদ্ভিদ। কান্ড সরল, শাখা-প্রশাখা যুক্ত, ছাল ধূসর বর্ণের। পাতা সরল, বৃক্ষক, প্রতি মুতি এটি সবুজ থাকে যা পরে গোলাপি হয় এবং পাকলে কালো বা কালচে বেগুনি হয়ে যায়। এটি খেলে জিহবা বেগুনি হয়ে যায়। স্বাদ মধুর ও কষ্টা ভাবযুক্ত। ফলের মজ্জা হালকা গোলাপি ও রসাল। এ ব্যাপারে আদমদিঘী উপজেলা হাসপাতালের আবাসিক ডাক্তার ফজলে রাব্বি জানান যাদের ডায়বেটিস আছে তাদের জন্য জাম ফলটি বেশ উপকারী। এক গবেষণায় দেখা গেছে, এই ফল স্মৃতি শক্তি বাড়াতেও সাহায্য করে। ফলটিতে প্রচুর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট রয়েছে যা ফ্রি র‌্যাডিক্যালস তৈরিতে বাধা দেয়। জাম রক্তের শর্করা ও কোলস্টেরলের মাত্রা কমায়। আয়ুর্বেদ শাস্ত্রমতে, বিশেষ করে জামের বীজ ডায়াবেটিস রোগীদের রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। জামে প্রচুর আঁশ রয়েছে যা হৃদরোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে। জাম রক্ত পরিষ্কার করতে সহায়তা করে। শরীরে দূষিত কার্বণ ডাই-অক্সাইডের মাত্রা কমিয়ে দেহের প্রতিটি প্রান্তে অক্সিজেন পৌঁছে দেয়। জাম বার্ধক্য প্রতিরোধে সহায়ক। জামে স্যালিসাইলেট নামক এক ধরনের উপকরণ আছে, যা ব্যথানাশক হিসেবেও কাজ করে। ডায়াবেটিসের রোগীরা মৌসুমে প্রতিদিন ৮-১০টি জাম খেতে পারেন। উপজেলার সান্তাহার রেলগেটে জাম কিনতে আসা নেহাল আহম্মেদ নামে এক ক্রেতা বলেন, জাম ভারতবর্ষ থেকে সারা দুনিয়াতে ছড়িয়েছে। আমাদের এ অঞ্চলে প্রধানত দুই জাতের জাম পাওয়া যায়। জাত দুটি হলো ক্ষুদি জাত- খুব ছোট এবং মহিষে জাত-বেশ বড় ও মিষ্টি। এটি বর্ষাকালে পাওয়া যায়। ফলের গা কালো এবং খুব মসৃণ পাতলা আবরণযুক্ত। ফলের বহিরাবরণের ঠিক নিচ থেকেই গাঢ় গোলাপী রংয়ের টক মিষ্টি শাস। জাম বিক্রেতা এনামুল মিয়া বলেন, প্রতি কেজি জাম ১ শত টাকা থেকে ১শত ২০ টাকা দরে বিক্রি করছি। বাজারে জামের প্রচুর চাহিদা আছে কিন্তু সেই তুলনায় জাম পাওয়া যাচ্ছে না।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ads

বিলুপ্তির পথে হারিয়ে যাচ্ছে ফলদ ও ভেজষ গুণ সম্পন্ন কালো জাম

আপডেট সময় : ০১:১০:১২ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩ জুলাই ২০২৪

নির্বিচারে বৃক্ষ নিধনের ফলে হারিয়ে যাচ্ছে দেশি ফল কালো জাম। এই ফল এখন চলে গেছে দামি ফলের তালিকায়। এক সময় প্রচুর জাম গাছ চোখে পড়লেও এখন তেমন দেখা যায় না। অত্যন্ত ঔষধি গুণ সম্পন্ন পাকা জামের মধুর রসে এখন আর মুখ আগের মতো রঙিন হয় না। জাম গাছ ২০-২৫ মিটার পর্যন্ত উঁচু হয়। এটি বৃক্ষ জাতীয় উদ্ভিদ। কান্ড সরল, শাখা-প্রশাখা যুক্ত, ছাল ধূসর বর্ণের। পাতা সরল, বৃক্ষক, প্রতি মুতি এটি সবুজ থাকে যা পরে গোলাপি হয় এবং পাকলে কালো বা কালচে বেগুনি হয়ে যায়। এটি খেলে জিহবা বেগুনি হয়ে যায়। স্বাদ মধুর ও কষ্টা ভাবযুক্ত। ফলের মজ্জা হালকা গোলাপি ও রসাল। এ ব্যাপারে আদমদিঘী উপজেলা হাসপাতালের আবাসিক ডাক্তার ফজলে রাব্বি জানান যাদের ডায়বেটিস আছে তাদের জন্য জাম ফলটি বেশ উপকারী। এক গবেষণায় দেখা গেছে, এই ফল স্মৃতি শক্তি বাড়াতেও সাহায্য করে। ফলটিতে প্রচুর অ্যান্টি অক্সিডেন্ট রয়েছে যা ফ্রি র‌্যাডিক্যালস তৈরিতে বাধা দেয়। জাম রক্তের শর্করা ও কোলস্টেরলের মাত্রা কমায়। আয়ুর্বেদ শাস্ত্রমতে, বিশেষ করে জামের বীজ ডায়াবেটিস রোগীদের রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। জামে প্রচুর আঁশ রয়েছে যা হৃদরোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে। জাম রক্ত পরিষ্কার করতে সহায়তা করে। শরীরে দূষিত কার্বণ ডাই-অক্সাইডের মাত্রা কমিয়ে দেহের প্রতিটি প্রান্তে অক্সিজেন পৌঁছে দেয়। জাম বার্ধক্য প্রতিরোধে সহায়ক। জামে স্যালিসাইলেট নামক এক ধরনের উপকরণ আছে, যা ব্যথানাশক হিসেবেও কাজ করে। ডায়াবেটিসের রোগীরা মৌসুমে প্রতিদিন ৮-১০টি জাম খেতে পারেন। উপজেলার সান্তাহার রেলগেটে জাম কিনতে আসা নেহাল আহম্মেদ নামে এক ক্রেতা বলেন, জাম ভারতবর্ষ থেকে সারা দুনিয়াতে ছড়িয়েছে। আমাদের এ অঞ্চলে প্রধানত দুই জাতের জাম পাওয়া যায়। জাত দুটি হলো ক্ষুদি জাত- খুব ছোট এবং মহিষে জাত-বেশ বড় ও মিষ্টি। এটি বর্ষাকালে পাওয়া যায়। ফলের গা কালো এবং খুব মসৃণ পাতলা আবরণযুক্ত। ফলের বহিরাবরণের ঠিক নিচ থেকেই গাঢ় গোলাপী রংয়ের টক মিষ্টি শাস। জাম বিক্রেতা এনামুল মিয়া বলেন, প্রতি কেজি জাম ১ শত টাকা থেকে ১শত ২০ টাকা দরে বিক্রি করছি। বাজারে জামের প্রচুর চাহিদা আছে কিন্তু সেই তুলনায় জাম পাওয়া যাচ্ছে না।