বগুড়ার শেরপুরে বেওয়ারিস কুকুরের উৎপাত বৃদ্ধি গত ৩দিনে কুকুরের কামড়ে শিশু সহ ৭জন আহত

0
7

স্টাফরিপোর্টার:
বগুড়ার শেরপুর পৌর শহরে হঠাৎ করেই বেওয়ারিস কুকুরের উৎপাত আশংকাজানক ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছ্।ে শহরের খন্দকারপাড়া এলাকায় গত তিন দিনে কুকুরের কামড়ে কমপক্ষে ৭ জন আহত হয়েছে। ফলে শহরে এখন বেওয়ারিস কুকুর আতংক বিরাজ করছে।

অভিযোগ উঠেছে শেরপুর পৌর কর্তৃপক্ষের উদাসিনতা এবং কর্তব্য পালনে চরম গাফিলতির কারনে শহরে দিনদিন কুকুরের উপদ্রপ বাড়ছে বলে অভিযোগ করেছেন এলাকার মানুষ।

ইত্বমধ্য যারা কুকুরের কামড়ে আহত হয়েছেন তারা হল ,সাজেদা বেগম (৭০), ছামুদা পারভিন (৭), মনির (৪), মোমিনুল হাসান(৪৭) সহ অজ্ঞাত আরো তিন জন চিকিৎসারত রয়েছেন।

জানা যায়, শেরপুর পৌর শহরের খন্দকারপাড়া এলাকা সহ শহরের বিভিন্ন এলাকায় ফেলো উ”্ছষ্টি খাবার, ড্রেনের ময়লা আবর্জননা রাস্তার পাশে ফেলে রাখার পর তা সময় মত পৌর কর্তৃপক্ষ পরিস্কার না করায় সেখানে কুকুরের অবাধ বিচরণ ক্ষেত্রে পরিনত হয়। ফলে সেখানে রাস্তা দিয়ে চলাচলের সময় গত তিন দিনে খন্দকারপাড়া এলাকার বাসিন্দা সাহেব আলীর মেয়ে সাজেদা বেগম, মো. শরিফের মেয়ে ছামুদা পারভিন, রায়হানের ছেলে মনির, শহিদুল ইসলামের ছেলে মোমিনুল হাসান সহ অজ্ঞাত আরো তিন জনকে কামড়ে দেয় কুকুর । দিন দিন এ ঘটনা বৃদ্ধি পাওয়ায় বেওয়ারিস কুকুর আতংকে রয়েছে পৌরবাসি। এলাকাবাসী আশংকা প্রকাশ করে বলেন দ্রুত এর ব্যবস্থা না নেয়া হলে কুকুরের কামড়ে আহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে।
এ ব্যাপারে ৪ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা জাহাঙ্গীর ইসলাম বলেন, খন্দকার পাড়ার ঘটনাটা আমি শুনেছি। আমাদের এই ওয়ার্ডবাসিকেও প্রতিদিন কুকুর আতংক নিয়ে রাস্তায় চলাচল করতে হয়। এই বিষয়টি পৌর কর্তৃপক্ষকে জানালেও কোন প্রতিকার হচ্ছেনা।
এ ব্যাপারে এলাকার শিক্ষক মোজাফফর আলী জানান, আমি সহ বেশ কয়েকজন অভিভাবক কুকুর কামড়ে দেয়ার ভয়ে বাচ্চাদের ঘর থেকে বের হতে দিচ্ছিনা।
এ ব্যাপারে ৯ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ফিরোজ আহম্মেদ জুয়েল বলেন, সাদা একটি কুকুর পাগলা হয়ে কয়েকজনকে কামড় দিয়েছে। পৌরসভায় কুকুর নিধনের সরঞ্জামাদি না থাকায় কুকুরের বিচরণ রোধ করা যাচ্ছেনা।
এ প্রসঙ্গে ভারপ্রাপ্ত মেয়র নাজমুল আলম খোকন বলেন, বেওয়ারিস কুকুর নিধনের ব্যাপারে আলোচনা করে খুব দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।