ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি: বস্তনিষ্ঠ সংবাদ ঠেকাতে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে ঠাকুরগাঁও রিপোর্টার্স ইউনিটির নেতাদের উপর সন্ত্রাসী কায়দায় হামলার পর ক্ষমতার অপব্যবহার করে ঠাকুরগাঁও প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি মনসুর আলীর দায়ের করা মিথ্যা মামলা থেকে ৭ জন সংবাদিককে আগাম জামিন দিয়েছে আদালত।

মঙ্গলবার দুপুরে ঠাকুরগাঁও সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালতের বিচারক আরিফুল ইসলাম তাদের আগাম জামিন মঞ্জুর করে। বিষয়টি ঠাকুরগাঁও রিপোর্টার্স ইউনিটির পক্ষের আইনজীবি এ্যাড. আবু তোরাব মানিক নিশ্চিত করেছেন।

আগাম জামিন পাওয়া সাংবাদিকরা হলেন-ঠাকুরগাঁও রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি ও জিটিভির জেলা প্রতিনিধি এমদাদুল হক ভুট্টো, সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ প্রতিদিন, নিউজ২৪ এর জেলা প্রতিনিধি আব্দুল লতিফ লিটু, অর্থ সম্পাদক ও সময়টিভির জেলা প্রতিনিধি জিয়াউর রহমান বকুল, দপ্তর সম্পাদক জয় মহন্ত অলক, সিএনএন বাংলা টিভির স্টাফ রিপোর্টার আব্দুল আলিম, বিজয় টিভির জেলা প্রতিনিধি মামুনুর রশিদ মিন্টু ও সময় টিভির ক্যামেরা পার্সন সুমন।

জানা গেছে, গত ১৮ মার্চ ঠাকুরগাঁও পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে ঠাকুরগাঁও রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংবাদিকদের সাথে দ্বন্দে জড়ায় প্রেস ক্লাবের সভাপতি মনসুর আলী ও অন্যান্য সাংবাদিকরা। পরে নরেশ চৌহান রোডে সময় টিভির অফিসে এসে ফিল্মি স্টাইলে ঠাকুরগাঁও রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতিকে মারধর করে।

যার সিসিটিভি ক্যামেরা ফুটেজের ভিডিও ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। ওইদিনই প্রেস ক্লাবের নেতা হিসেবে ক্ষমতার অপব্যবহার করে ঠাকুরগাঁও রিপোর্টার্স ইউনিটির ৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে মনসুর আলী।

ঠাকুরগাঁও রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল লতিফ লিটু বলেন, আমাদের লোকজনকে মারধর করে উল্টো আমাদেরকে মামলার আসামী করা হয়েছে। সুষ্ঠু তদন্তের আসল ঘটনা বেরিয়ে আসবে। আমরা প্রশাসনের কাছে ন্যায় বিচার দাবি করছি। তাছাড়া প্রেস ক্লাবের নেতাদের এমন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড দেখে আমরা হতবাক হয়েছি। ঠাকুরগাঁও রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি এমদাদুল হক ভুট্টো জানান, আমরা আইনের প্রতি সর্বদা শ্রদ্ধাশীল। মামলায় আইনগত ভাবে লড়াই করবো।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

By Editor

Leave a Reply