ঢাকা ১১:১৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
বগুড়ার সান্তাহারে ৭২ হাজার টাকার জাল নোটসহ একজন গ্রেপ্তার জেলা যুবলীগের আয়োজনে ইফতার বিতরণ আদমদীঘিতে স্বামী স্ত্রীকে হত্যার উদ্দেশ্যে মারপিট মামলায় আরো দুইজন গ্রেফতার আদমদীঘিতে ট্রাকের ধাক্কায় একজন নিহত সিরাজদিখানে স্মার্ট বাংলাদেশ বাস্তবায়নে শিক্ষকদের করণীয় শীর্ষক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ধুনট থিয়েটারের আয়োজনে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত বগুড়ায় ঔষধ বাজারে সয়লাব বিক্রি নিষিদ্ধ ফিজিশিয়ান স্যাম্পলে সিরাজগঞ্জে বিশ্ব নাট্য দিবস পালিত মনন সাহিত্য সংগঠনের পাক্ষিক অধিবেশন এবং ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত বগুড়ায় সিএনজি চালিত গাড়ির সিলিন্ডার রি-টেস্টিং শতভাগ নিশ্চিত করা সময়েরদাবী গোমস্তাপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপিত নওগাঁয় সর্প দংশনে এক শিশুর মৃত্যু ( প্রতীকি ছবি) বগুড়ায় ধর্ষণের ঘটনা ধামা চাপা দিতে তামিমকে হত্যা করা হয়েছিলো বগুড়ায় তুচ্ছ ঘটনায় একজন ছুরিকাঘাত বাজার এলাকায় উত্তেজনা হলে ইউএনও ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এসে পরিস্থিতি শান্ত করেন। নওগাঁয় প্রভাবশাী ক্ষমতাবলে দীর্ঘ ৩ মাস ধরে গৃহবন্দী পরিবার নওগাঁয় ভূমি অফিসে অভিযান দালাল চক্রের সদস্যকে অর্থদণ্ড নওগাঁর বিভিন্ন দোকানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান ব্যবসায়ীকে জরিমানা বগুড়ায় ট্রাক ও অটোরিক্সার মুখোমুখি সংঘর্ষে একই পরিবারের ৩ জনসহ নিহত ৪ আহত ২ আদমদীঘিতে শ্বাশুড়ীকে খুনের মামলায় জামাই প্রেফতার নওগাঁয় মাদক ও অসামাজিক কাজ বন্ধের মানববন্ধন টাঙ্গাইলের মধুপুরে কবর থেকে ৫টি কঙ্কাল চুরি

নওগাঁয় সিজারিয়ানের মাধ্যমে প্রসুতিকে হত্যার অভিযোগ

নওগাঁ প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ১১:৫৬:০২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০২৪ ৪২ বার পড়া হয়েছে

নওগাঁর মহাদেবপুরে একটি বেসরকারি ক্লিনিকে রক্ত দিতে নিয়ে এসে রোগীর ইচ্ছার বিরুদ্ধে সিজারিয়ান অপারেশন করার পর রোকসানা বেগম (৩৫) নামে এক প্রসুতিকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে ইনসাইট ডায়গনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে। সদ্য প্রসুত শিশু সন্তানসহ ৪ কন্যা সন্তানকে নিয়ে বিপাকে পরেছেন তার স্বামী ও পরিবারের লোকজন। ক্লিনিক মালিকের কারসাজিতে তার স্ত্রীর মৃত্যুর বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে তিনি এখন দ্বারে দ্বারে ধর্না দিচ্ছেন। উপজেলার এনায়েতপুর গ্রামের নুর মোহাম্মদের ছেলে লুৎফর রহমান বুধবার গত (২৬ জুন) বিকেলে উপজেলা সদরে এ বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে উপরোক্ত অভিযোগ করেন। লিখিত বক্তব্যে তিনি অভিযোগ করেন যে, তার স্ত্রীর শরীরে রক্ত কম থাকায় ডাক্তারের পরামর্শে গত ৩০ এপ্রিল সকালে তিনি তার নয় মাসের গর্ভবতী স্ত্রীকে রক্ত দেয়ার জন্য উপজেলা সদরের ইনসাইড ডায়গনস্টিক সেন্টারে নিয়ে যান। সেখানে রক্ত দেয়ার সময় তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে তার স্ত্রীকে প্রসব ব্যাথার ওষুধ খাওয়ানো হয়। এতে তার প্রসব ব্যাথা শুরু হয়। পরিবারের লোকজন তার নরমাল ডেলিভারি করাতে চাইলেও ওই ক্লিনিকের পরিচালক হাবীব তাকে নানাভাবে ভূল বুঝিয়ে এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভালো ডাক্তার দেওয়ান আব্দুস সবুর অপারেশন করবেন জানিয়ে বিভিন্ন প্রলোভনে সিজারিয়ান অপারেশন করার জন্য চাপ দেন। এক পর্যায়ে দুপুরে তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধেই অপারেশন করে বাচ্চা বের করা হয়। এর ঘন্টাখানেক পর অপারেশন থিয়েতার থেকে রোগীকে বের করা হলে রোগী যন্ত্রণায় ছটফট করতে থাকে। এর
কিছুক্ষণ পর আবারও প্রসুতি রোকসানাকে আবার অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে তার জরায়ু কেটে ফেলা হয়। এতে তার অবস্থার মারাত্মক অবনতি ঘটলে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ
হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। সন্ধ্যায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে জরুরী ভিত্তিতে আইসিইউতে নিতে বলেন। সেখানে
আইসিইউ খালি না থাকায় পার্শ্ববর্তী একটি ক্লিনিকের আইসিইউতে নেয়া হয়। সেখানে নিবিড় পর্যবেক্ষণে থাকার সময় পরদিন ভোরে তার মৃত্যু হয়। সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো অভিযোগ করেন যে, তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে এবং ভালোভাবে অজ্ঞান না করেই তড়িঘড়ি করে ভূল অপারেশন করে তার স্ত্রীকে হত্যা করা হয়েছে। এজন্য তিনি সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ঘটনার পরপরই উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। কিন্তু দেড় মাসেও এব্যাপারে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। গত ২৩ জুন এ ব্যাপারে তিনি আবারো একটি অভিযোগ দায়ের করেন। তার স্ত্রীর মৃত্যুর পর তিনি তার চার কন্যা শিশু নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন বলেও জানার। সদ্য প্রসুত শিশুসহ তাদেরকে মানুষ করা তার জন্য দূর্বিসহ হয়ে উঠেছে। জানতে চাইলে ইনসাইড ডায়গনস্টিক সেন্টার এন্ড জেনালে হাসপাতালের মালিক হাবীব ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. দেওয়ান আব্দুস সবুর এব্যাপারে কোন কথা বলতে রাজী হননি। জানতে চাইলে উপজেলা স্বাস্থ্য ওপরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: খুরশিদুল ইসলাম অভিযোগ পাবার কথা স্বীকার করে জানান, এবিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ads

নওগাঁয় সিজারিয়ানের মাধ্যমে প্রসুতিকে হত্যার অভিযোগ

আপডেট সময় : ১১:৫৬:০২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০২৪

নওগাঁর মহাদেবপুরে একটি বেসরকারি ক্লিনিকে রক্ত দিতে নিয়ে এসে রোগীর ইচ্ছার বিরুদ্ধে সিজারিয়ান অপারেশন করার পর রোকসানা বেগম (৩৫) নামে এক প্রসুতিকে হত্যার অভিযোগ উঠেছে ইনসাইট ডায়গনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে। সদ্য প্রসুত শিশু সন্তানসহ ৪ কন্যা সন্তানকে নিয়ে বিপাকে পরেছেন তার স্বামী ও পরিবারের লোকজন। ক্লিনিক মালিকের কারসাজিতে তার স্ত্রীর মৃত্যুর বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে তিনি এখন দ্বারে দ্বারে ধর্না দিচ্ছেন। উপজেলার এনায়েতপুর গ্রামের নুর মোহাম্মদের ছেলে লুৎফর রহমান বুধবার গত (২৬ জুন) বিকেলে উপজেলা সদরে এ বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে উপরোক্ত অভিযোগ করেন। লিখিত বক্তব্যে তিনি অভিযোগ করেন যে, তার স্ত্রীর শরীরে রক্ত কম থাকায় ডাক্তারের পরামর্শে গত ৩০ এপ্রিল সকালে তিনি তার নয় মাসের গর্ভবতী স্ত্রীকে রক্ত দেয়ার জন্য উপজেলা সদরের ইনসাইড ডায়গনস্টিক সেন্টারে নিয়ে যান। সেখানে রক্ত দেয়ার সময় তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে তার স্ত্রীকে প্রসব ব্যাথার ওষুধ খাওয়ানো হয়। এতে তার প্রসব ব্যাথা শুরু হয়। পরিবারের লোকজন তার নরমাল ডেলিভারি করাতে চাইলেও ওই ক্লিনিকের পরিচালক হাবীব তাকে নানাভাবে ভূল বুঝিয়ে এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ভালো ডাক্তার দেওয়ান আব্দুস সবুর অপারেশন করবেন জানিয়ে বিভিন্ন প্রলোভনে সিজারিয়ান অপারেশন করার জন্য চাপ দেন। এক পর্যায়ে দুপুরে তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধেই অপারেশন করে বাচ্চা বের করা হয়। এর ঘন্টাখানেক পর অপারেশন থিয়েতার থেকে রোগীকে বের করা হলে রোগী যন্ত্রণায় ছটফট করতে থাকে। এর
কিছুক্ষণ পর আবারও প্রসুতি রোকসানাকে আবার অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে তার জরায়ু কেটে ফেলা হয়। এতে তার অবস্থার মারাত্মক অবনতি ঘটলে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ
হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। সন্ধ্যায় তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে জরুরী ভিত্তিতে আইসিইউতে নিতে বলেন। সেখানে
আইসিইউ খালি না থাকায় পার্শ্ববর্তী একটি ক্লিনিকের আইসিইউতে নেয়া হয়। সেখানে নিবিড় পর্যবেক্ষণে থাকার সময় পরদিন ভোরে তার মৃত্যু হয়। সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো অভিযোগ করেন যে, তাদের ইচ্ছার বিরুদ্ধে এবং ভালোভাবে অজ্ঞান না করেই তড়িঘড়ি করে ভূল অপারেশন করে তার স্ত্রীকে হত্যা করা হয়েছে। এজন্য তিনি সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ঘটনার পরপরই উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। কিন্তু দেড় মাসেও এব্যাপারে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। গত ২৩ জুন এ ব্যাপারে তিনি আবারো একটি অভিযোগ দায়ের করেন। তার স্ত্রীর মৃত্যুর পর তিনি তার চার কন্যা শিশু নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন বলেও জানার। সদ্য প্রসুত শিশুসহ তাদেরকে মানুষ করা তার জন্য দূর্বিসহ হয়ে উঠেছে। জানতে চাইলে ইনসাইড ডায়গনস্টিক সেন্টার এন্ড জেনালে হাসপাতালের মালিক হাবীব ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. দেওয়ান আব্দুস সবুর এব্যাপারে কোন কথা বলতে রাজী হননি। জানতে চাইলে উপজেলা স্বাস্থ্য ওপরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: খুরশিদুল ইসলাম অভিযোগ পাবার কথা স্বীকার করে জানান, এবিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।