ঢাকা ১১:৪৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
বগুড়ার সান্তাহারে ৭২ হাজার টাকার জাল নোটসহ একজন গ্রেপ্তার জেলা যুবলীগের আয়োজনে ইফতার বিতরণ আদমদীঘিতে স্বামী স্ত্রীকে হত্যার উদ্দেশ্যে মারপিট মামলায় আরো দুইজন গ্রেফতার আদমদীঘিতে ট্রাকের ধাক্কায় একজন নিহত সিরাজদিখানে স্মার্ট বাংলাদেশ বাস্তবায়নে শিক্ষকদের করণীয় শীর্ষক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ধুনট থিয়েটারের আয়োজনে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত বগুড়ায় ঔষধ বাজারে সয়লাব বিক্রি নিষিদ্ধ ফিজিশিয়ান স্যাম্পলে সিরাজগঞ্জে বিশ্ব নাট্য দিবস পালিত মনন সাহিত্য সংগঠনের পাক্ষিক অধিবেশন এবং ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত বগুড়ায় সিএনজি চালিত গাড়ির সিলিন্ডার রি-টেস্টিং শতভাগ নিশ্চিত করা সময়েরদাবী গোমস্তাপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপিত নওগাঁয় সর্প দংশনে এক শিশুর মৃত্যু ( প্রতীকি ছবি) বগুড়ায় ধর্ষণের ঘটনা ধামা চাপা দিতে তামিমকে হত্যা করা হয়েছিলো বগুড়ায় তুচ্ছ ঘটনায় একজন ছুরিকাঘাত বাজার এলাকায় উত্তেজনা হলে ইউএনও ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এসে পরিস্থিতি শান্ত করেন। নওগাঁয় প্রভাবশাী ক্ষমতাবলে দীর্ঘ ৩ মাস ধরে গৃহবন্দী পরিবার নওগাঁয় ভূমি অফিসে অভিযান দালাল চক্রের সদস্যকে অর্থদণ্ড নওগাঁর বিভিন্ন দোকানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান ব্যবসায়ীকে জরিমানা বগুড়ায় ট্রাক ও অটোরিক্সার মুখোমুখি সংঘর্ষে একই পরিবারের ৩ জনসহ নিহত ৪ আহত ২ আদমদীঘিতে শ্বাশুড়ীকে খুনের মামলায় জামাই প্রেফতার নওগাঁয় মাদক ও অসামাজিক কাজ বন্ধের মানববন্ধন টাঙ্গাইলের মধুপুরে কবর থেকে ৫টি কঙ্কাল চুরি

নওগাঁয় আত্মহত্যা প্ররোচনার মামলায় একজন গ্রেপ্তার

নওগাঁ প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৪:২১:৩৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জুলাই ২০২৪ ৩১ বার পড়া হয়েছে

 

 

নওগাঁ মান্দা উপজেলায় বড় স্ত্রী সূচনা আক্তারকে আত্মহত্যায় প্ররোচিত করার অভিযোগ এনে সাংবাদিক স্বামী ও সতিনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। নিহত সূচনা আক্তারের ভাই আরিফ হোসেন বাদি হয়ে রোববার রাতে মান্দা থানায় মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় পর রাতেই অভিযান চালিয়ে সাংবাদিক এমএ রাজ্জাকের ছোট স্ত্রী ফারজানা আক্তারকে (৩০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার (১ জুলাই) আদালতের মাধ্যমে তাকে নওগাঁর কারাগারে পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্ত সাংবাদিক এমএ রাজ্জাক নওগাঁর মান্দা উপজেলার পরানপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ পরানপুর গ্রামের রিয়াজ উদ্দিন সরদারের ছেলে। তিনি ঢাকা থেকে প্রকাশিত একটি দৈনিকের নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি। প্রায় ১৫ বছর আগে রাজধানী ঢাকার ক্যান্টনমেন্ট এলাকার বাসিন্দা সূচনা আক্তারকে বিয়ে করেন সাংবাদিক এমএ রাজ্জাক। এ স্ত্রীর সঙ্গে চার বছর সংসার করেন। এ পক্ষের একটি মেয়ে ও একটি ছেলে সন্তান আছে। নিহত সূচনা আক্তারের বড়বোন রেহেনা আক্তার বলেন, চার বছর সংসার করার পর বনিবনা না হওয়ায় বোন সূচনা আক্তারকে রেখে ছেলে-মেয়েকে নিয়ে অভিযুক্ত রাজ্জাক নিজ গ্রামে চলে আসেন। পরবর্তীতে ফারজানা আক্তার নামে আরেক নারীকে বিয়ে করে রাজ্জাক। রেহেনা আক্তার আরও বলেন, গর্ভের সন্তানদের দেখার জন্য বোন সূচনা আক্তার মাঝে মধ্যে রাজ্জাকের বাড়ি আসত। ঈদ উপলক্ষে গত ২২ জুন সূচনা আবারও রাজ্জাকের বাড়ি আসে। এখানে অবস্থানকালে ২৬ জুন কেনাকাটার জন্য সূচনা স্বামী রাজ্জাককে সঙ্গে নিয়ে স্থানীয় গোপালপুর বাজারে যায়। এনিয়ে সতিন ফারজানার সঙ্গে সূচনার হাতাহাতি হয়। পরবর্তীতে সতিন ফারজানা ও স্বামী রাজ্জাকের নির্যাতন সইতে না পেরে বোন সূচনা আত্মহত্যা করে। এ প্রসঙ্গে মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাম্মেল হক কাজী বলেন, নিহত সূচনা আক্তারের মরদেহ ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় স্বামী রাজ্জাক ও সতিন ফারজানার বিরুদ্ধে মামলা করেন নিহতের ভাই আরিফ হোসেন। মামলার পর সতিন ফারাজানাকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। উল্লেখ্য, সাংবাদিক স্বামী ও সতিনের নির্যাতন সইতে না পেরে গত বৃহস্পতিবার রাতে এক সঙ্গে ৪০টি প্যারাসিটামল ট্যাবলেট সেবন করেন সূচনা আক্তার। মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ওই রাতেই মান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার সকালে তিনি মারা যান। এর পর স্ত্রী সূচনা আক্তারের লাশ হাসপাতালে ফেলে রেখেই আত্মগোপনে চলে যান সাংবাদিক এমএ রাজ্জাক।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ads

নওগাঁয় আত্মহত্যা প্ররোচনার মামলায় একজন গ্রেপ্তার

আপডেট সময় : ০৪:২১:৩৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জুলাই ২০২৪

 

 

নওগাঁ মান্দা উপজেলায় বড় স্ত্রী সূচনা আক্তারকে আত্মহত্যায় প্ররোচিত করার অভিযোগ এনে সাংবাদিক স্বামী ও সতিনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। নিহত সূচনা আক্তারের ভাই আরিফ হোসেন বাদি হয়ে রোববার রাতে মান্দা থানায় মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় পর রাতেই অভিযান চালিয়ে সাংবাদিক এমএ রাজ্জাকের ছোট স্ত্রী ফারজানা আক্তারকে (৩০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সোমবার (১ জুলাই) আদালতের মাধ্যমে তাকে নওগাঁর কারাগারে পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্ত সাংবাদিক এমএ রাজ্জাক নওগাঁর মান্দা উপজেলার পরানপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ পরানপুর গ্রামের রিয়াজ উদ্দিন সরদারের ছেলে। তিনি ঢাকা থেকে প্রকাশিত একটি দৈনিকের নওগাঁ জেলা প্রতিনিধি। প্রায় ১৫ বছর আগে রাজধানী ঢাকার ক্যান্টনমেন্ট এলাকার বাসিন্দা সূচনা আক্তারকে বিয়ে করেন সাংবাদিক এমএ রাজ্জাক। এ স্ত্রীর সঙ্গে চার বছর সংসার করেন। এ পক্ষের একটি মেয়ে ও একটি ছেলে সন্তান আছে। নিহত সূচনা আক্তারের বড়বোন রেহেনা আক্তার বলেন, চার বছর সংসার করার পর বনিবনা না হওয়ায় বোন সূচনা আক্তারকে রেখে ছেলে-মেয়েকে নিয়ে অভিযুক্ত রাজ্জাক নিজ গ্রামে চলে আসেন। পরবর্তীতে ফারজানা আক্তার নামে আরেক নারীকে বিয়ে করে রাজ্জাক। রেহেনা আক্তার আরও বলেন, গর্ভের সন্তানদের দেখার জন্য বোন সূচনা আক্তার মাঝে মধ্যে রাজ্জাকের বাড়ি আসত। ঈদ উপলক্ষে গত ২২ জুন সূচনা আবারও রাজ্জাকের বাড়ি আসে। এখানে অবস্থানকালে ২৬ জুন কেনাকাটার জন্য সূচনা স্বামী রাজ্জাককে সঙ্গে নিয়ে স্থানীয় গোপালপুর বাজারে যায়। এনিয়ে সতিন ফারজানার সঙ্গে সূচনার হাতাহাতি হয়। পরবর্তীতে সতিন ফারজানা ও স্বামী রাজ্জাকের নির্যাতন সইতে না পেরে বোন সূচনা আত্মহত্যা করে। এ প্রসঙ্গে মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাম্মেল হক কাজী বলেন, নিহত সূচনা আক্তারের মরদেহ ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় স্বামী রাজ্জাক ও সতিন ফারজানার বিরুদ্ধে মামলা করেন নিহতের ভাই আরিফ হোসেন। মামলার পর সতিন ফারাজানাকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। উল্লেখ্য, সাংবাদিক স্বামী ও সতিনের নির্যাতন সইতে না পেরে গত বৃহস্পতিবার রাতে এক সঙ্গে ৪০টি প্যারাসিটামল ট্যাবলেট সেবন করেন সূচনা আক্তার। মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে ওই রাতেই মান্দা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার সকালে তিনি মারা যান। এর পর স্ত্রী সূচনা আক্তারের লাশ হাসপাতালে ফেলে রেখেই আত্মগোপনে চলে যান সাংবাদিক এমএ রাজ্জাক।