ঢাকা ১২:৫১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
বগুড়ার সান্তাহারে ৭২ হাজার টাকার জাল নোটসহ একজন গ্রেপ্তার জেলা যুবলীগের আয়োজনে ইফতার বিতরণ আদমদীঘিতে স্বামী স্ত্রীকে হত্যার উদ্দেশ্যে মারপিট মামলায় আরো দুইজন গ্রেফতার আদমদীঘিতে ট্রাকের ধাক্কায় একজন নিহত সিরাজদিখানে স্মার্ট বাংলাদেশ বাস্তবায়নে শিক্ষকদের করণীয় শীর্ষক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ধুনট থিয়েটারের আয়োজনে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত বগুড়ায় ঔষধ বাজারে সয়লাব বিক্রি নিষিদ্ধ ফিজিশিয়ান স্যাম্পলে সিরাজগঞ্জে বিশ্ব নাট্য দিবস পালিত মনন সাহিত্য সংগঠনের পাক্ষিক অধিবেশন এবং ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত বগুড়ায় সিএনজি চালিত গাড়ির সিলিন্ডার রি-টেস্টিং শতভাগ নিশ্চিত করা সময়েরদাবী গোমস্তাপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপিত নওগাঁয় সর্প দংশনে এক শিশুর মৃত্যু ( প্রতীকি ছবি) বগুড়ায় ধর্ষণের ঘটনা ধামা চাপা দিতে তামিমকে হত্যা করা হয়েছিলো বগুড়ায় তুচ্ছ ঘটনায় একজন ছুরিকাঘাত বাজার এলাকায় উত্তেজনা হলে ইউএনও ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এসে পরিস্থিতি শান্ত করেন। নওগাঁয় প্রভাবশাী ক্ষমতাবলে দীর্ঘ ৩ মাস ধরে গৃহবন্দী পরিবার নওগাঁয় ভূমি অফিসে অভিযান দালাল চক্রের সদস্যকে অর্থদণ্ড নওগাঁর বিভিন্ন দোকানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান ব্যবসায়ীকে জরিমানা বগুড়ায় ট্রাক ও অটোরিক্সার মুখোমুখি সংঘর্ষে একই পরিবারের ৩ জনসহ নিহত ৪ আহত ২ আদমদীঘিতে শ্বাশুড়ীকে খুনের মামলায় জামাই প্রেফতার নওগাঁয় মাদক ও অসামাজিক কাজ বন্ধের মানববন্ধন টাঙ্গাইলের মধুপুরে কবর থেকে ৫টি কঙ্কাল চুরি

আদমদীঘিতে হঠাৎ ক্ষুরা রোগের আদুর্ভাব

আদমদিঘী (বগুড়া) প্রতিনিধি :
  • আপডেট সময় : ০৩:৫২:০৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জুলাই ২০২৪ ৪২ বার পড়া হয়েছে

 

বগুড়ার আদমদীঘিতে হঠাৎ ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে গরুর ক্ষুরা রোগ। মাত্র এক সপ্তাহের ব্যবধানে উপজেলার সান্তাহার ইউপির দমদমা গ্রামে এই রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রায় ৩০টির মতো গরু মারা গেছে বলে অভিযোগ করেছেন খামারি ও কৃষকরা। এ ছাড়া অসুস্থ হয়ে পড়েছে এলাকার বেশিরভাগ গবাদি পশু। দমদমা এগ্রো ফার্মের স্বত্বাধিকারী হাসান জানান তার খামারে পালিত ১২টি গরুর মধ্যে কোরবানির ঈদে ৯টি গরু বিক্রি করেছিলেন। বাকি তিনটির মধ্যে হলস্টিন ফ্রিজিয়ান জাতের (১২০০ কেজি ওজন) গরুটি হঠাৎ ক্ষুরারোগে আক্রান্ত হয়ে গত রবিবার সকালে মারা যায়। এতে তিনি সাড়ে ৪ লাখ টাকা ক্ষতির মুখে পড়েছেন। ওই গ্রামের বাসিন্দা গোলাম কিবরিয়া জানান এক সপ্তাহের ব্যবধানে গ্রামে প্রায় ২৫-৩০টি গরু মারা গেছে। একটি পাড়াতেই ১৫-২০টি গরু মারা গেছে। অসংখ্য গরু আক্রান্ত হয়ে পড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর থেকে কোনো কর্মকর্তা বা কর্মচারীকে পরামর্শ দিতে আসতে দেখা যাচ্ছে না। ফলে খামারি ও কৃষকরা তাদের গরু নিয়ে হতাশায় ভুগছেন। উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাক্তার আমিরুল ইসলাম জানান গ্রামজুড়ে গরুর রোগ ছড়িয়ে পড়ার খবর পেয়ে ওই রবিবার সকালে ওই গ্রামে গিয়েছিলাম। ওই গ্রামের যেসব গরু মারা গেছে সেগুলো ক্ষুরা রোগে আক্রান্ত ছিল। এজন্য অন্য যেসব গরু আক্রান্ত হয়েছে প্রত্যেক খামারির বাড়িতে গিয়ে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। খামারি হাসানের গরু গুরুতর অসুস্থ ছিল না। হঠাৎ মারা গেছে। এই রোগ থেকে প্রতিকার পেতে আগে থেকে টিকা দিতে হবে। তা না হলে ক্ষুরা রোগে আক্রান্ত গরুকে ওষুধ ও ভ্যাকসিন দেওয়ার পরেও বাঁচানো সম্ভব হয় না। তারপরও এসব বিষয় জেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরে জানানো হয়েছে। সম্ভবত সেখান থেকে একটি টিম এসে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ads

আদমদীঘিতে হঠাৎ ক্ষুরা রোগের আদুর্ভাব

আপডেট সময় : ০৩:৫২:০৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জুলাই ২০২৪

 

বগুড়ার আদমদীঘিতে হঠাৎ ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে গরুর ক্ষুরা রোগ। মাত্র এক সপ্তাহের ব্যবধানে উপজেলার সান্তাহার ইউপির দমদমা গ্রামে এই রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রায় ৩০টির মতো গরু মারা গেছে বলে অভিযোগ করেছেন খামারি ও কৃষকরা। এ ছাড়া অসুস্থ হয়ে পড়েছে এলাকার বেশিরভাগ গবাদি পশু। দমদমা এগ্রো ফার্মের স্বত্বাধিকারী হাসান জানান তার খামারে পালিত ১২টি গরুর মধ্যে কোরবানির ঈদে ৯টি গরু বিক্রি করেছিলেন। বাকি তিনটির মধ্যে হলস্টিন ফ্রিজিয়ান জাতের (১২০০ কেজি ওজন) গরুটি হঠাৎ ক্ষুরারোগে আক্রান্ত হয়ে গত রবিবার সকালে মারা যায়। এতে তিনি সাড়ে ৪ লাখ টাকা ক্ষতির মুখে পড়েছেন। ওই গ্রামের বাসিন্দা গোলাম কিবরিয়া জানান এক সপ্তাহের ব্যবধানে গ্রামে প্রায় ২৫-৩০টি গরু মারা গেছে। একটি পাড়াতেই ১৫-২০টি গরু মারা গেছে। অসংখ্য গরু আক্রান্ত হয়ে পড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর থেকে কোনো কর্মকর্তা বা কর্মচারীকে পরামর্শ দিতে আসতে দেখা যাচ্ছে না। ফলে খামারি ও কৃষকরা তাদের গরু নিয়ে হতাশায় ভুগছেন। উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাক্তার আমিরুল ইসলাম জানান গ্রামজুড়ে গরুর রোগ ছড়িয়ে পড়ার খবর পেয়ে ওই রবিবার সকালে ওই গ্রামে গিয়েছিলাম। ওই গ্রামের যেসব গরু মারা গেছে সেগুলো ক্ষুরা রোগে আক্রান্ত ছিল। এজন্য অন্য যেসব গরু আক্রান্ত হয়েছে প্রত্যেক খামারির বাড়িতে গিয়ে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। খামারি হাসানের গরু গুরুতর অসুস্থ ছিল না। হঠাৎ মারা গেছে। এই রোগ থেকে প্রতিকার পেতে আগে থেকে টিকা দিতে হবে। তা না হলে ক্ষুরা রোগে আক্রান্ত গরুকে ওষুধ ও ভ্যাকসিন দেওয়ার পরেও বাঁচানো সম্ভব হয় না। তারপরও এসব বিষয় জেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরে জানানো হয়েছে। সম্ভবত সেখান থেকে একটি টিম এসে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন।